সংশোধিত না হলে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে বলে অপকর্ম সংগঠনকারী নেতা-কর্মীদের সতর্ক করে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আয়োজিত জনসভাকে সফল করার লক্ষ্যে আওয়ামী লীগের সাথে স্বেচ্ছাসেবক লীগের মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, “যারা অপকর্ম করে তাদের সংশোধন হতে হবে। যারা সংশোধন হবে না তাদের দল থেকে বের করে দিতে হবে। প্রথমে সংশোধন করবো; যারা সংশোধন হবে না তাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।”

দেশে ‘সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদী গোষ্ঠীর’ বিপদ এখনো কাটেনি মন্তব্য করে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন ওবায়দুল কাদের।

আশকোনার জঙ্গি আস্তানায় ‘সাহসী অভিযান সফলভাবে’ শেষ হয়েছে মন্তব্য করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, “এ রকম আরও কত আশকোনা আছে এটা এই মুহূর্তে বলা যায় না। কারণ, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ এখন একটা গ্লোবাল ফেনোমেনন।

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের জনসভাকে ঐতিহাসিক জনসভায় রূপদানের আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, আগামী ১০ জানুয়ারি ঢাকার সকল রাজপথ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সাথে মিশে যাবে। আর তাই এ জনসভার জন্য সাধারণ মানুষের যাতে কোন দুর্ভোগ না হয়, সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা খুবই জরুরী।
তিনি বলেন, দেশের জনগণের জন্য রাজনীতি করি। আর জনসভার জন্য জনগণ দুর্ভোগ পোহালে দলের ইমেজের জন্য তা ইতিবাচক হবে না।

কাদের বলেন, তাই রাজপথগুলোতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবক রাখা দরকার যারা জনসভায় আসা মিছিলগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করে রাস্তার একপাশ দিয়ে নিয়ে আসবে। এতে যান চলাচলে কোন বিঘ্ন ঘটবে না। এতে জনগণের দুর্ভোগ কম হবে।

এ সময় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত শোভাযাত্রার জন্য সৃষ্ট যানজটের দুর্ভোগ পোহানোর জন্য রাজধানীবাসীর জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।

এ জনসভাকে শুধু জনসমাগমের দিক থেকে নয়, শৃঙ্খলার দিক থেকেও ঐতিহাসিক জনসভায় পরিণত করার জন্য স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা-কর্মীদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেন।

উল্লেখ, ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে লন্ডন ও নয়াদিল্লী হয়ে দেশের মাটিতে ফিরে আসেন। এর আগে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী বিশ্বের ইতিহাসে জঘণ্যতম গণহত্যা শুরু করার আগ মুহূর্তে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করেছিল।