নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জে এক আইনজীবির সাথে অশোভন আচরণ করেছেন অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট। এ ঘটনার পর তাকে প্রত্যাহারের জন্য ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছেন আইনজীবিরা।

অন্যথায় বেধে দেয়া সময়ের পর থেকে জেলার সব আদালত বর্জনের ঘোষণা দেন তারা। আল্টিমেটাম অনুযায়ী গতকাল সোমবার ও মঙ্গলবার আদালত বর্জন করেছেন আইনজীবিরা। এর পুর্বে গত রবিবার এক প্রতিবাদ সমাবেশে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

আইনজীবিরা জানান, গত বৃহস্পতিবার জুনিয়র আইনজীবি আতাউর রহমান রবিন আদালতে দন্ডবিধির ৫০৬/২ ধারায় (প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ) দায়েরকৃত মামলায় গ্রেফতারকৃত এক আসামির জামিন আবেদন করেন। এসময় বিচারক ও আইনজীবির মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়।

এক পর্যায়ে বিচারক ওই আইনজীবিকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন এবং ক্ষমা চাইতে বলেন। সে সময় এজলাসের দায়িত্বরত পুলিশ গাউন পরিহিত অবস্থায় ওই আইনজীবিকে টেনে হেঁচড়ে আসামির কাঠগড়ায় তুলে ক্ষমা প্রার্থনা করায়। এতে বিক্ষুব্ধ হন আইনজীবিরা। এর প্রতিবাদে গত রবিবার বেলা ২টায় আইনজীবি সমিতির দ্বিতীয় শাখায় এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় ৭২ ঘণ্টার মধ্যে অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এসএম হুমায়ূন কবিরকে প্রত্যাহারের দাবি জানান। এ সময় পর্যন্ত তার আদালত বর্জনেরও ঘোষণা দেন তারা। বেধে দেয়া সময়ের মধ্যে তাকে প্রত্যাহার না করা হলে তারা জেলার সকল আদালত বর্জনের ঘোষণা দেন। এদিকে গতকাল সোমবার আল্টিমেটামের ২য় দিন অতিবাহিত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার শেষ হচ্ছে আল্টিমেটামের ৭২ ঘন্টার সময়সীমা।