banglanewspaper

মাহদি মাসুদ পলাশ, গাইবান্ধা প্রতিনিধি: বাংলাদেশ ছাত্রলীগ গাইবান্ধা জেলা শাখার আহবায়ক, আব্দুল লতিফ আকন্দ শারীরিক সমস্যার কারনে চিকিৎসা সেবা নিতে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার আফরোজা সুলতানা এর পরিবর্তে নিয়োজিত ডাক্তার নাজমুল হুদা রনিকে রোগী এসেছে বলে জানালে কোন ঔষধ ব্যবস্থাপত্র এবং হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণের জন্য ভর্তি না করেই তার সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ ও ছাত্রলীগকে কটাক্ষ করে বিভিন্ন  কুটউক্তি ও কথাবার্তা বলেন।

এ বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন- আহবায়ক আলহাজ্ব শাহরিয়ার আহমদ সাকিল জানান, সদর হাসপাতালে ভোর আনুমানিক ৫টার দিকে গাইবান্ধা জেলা শাখার আহবায়ক আব্দুল লতিফ আকন্দ শারীরিক সমস্যার কারনে চিকিৎসা সেবা নিতে আসলে কর্তব্যরত ডিউটি ডাক্তার আফরোজা সুলতানা এর পরিবর্তে নিয়োজিত ডাক্তার নাজমুল হুদা রনিকে রোগী এসেছে বলে জানালে তিনি গাইবান্ধা জেলা শাখার আহবায়ক আব্দুল লতিফ আকন্দকে শারীরিক সমস্যার কারনে কোন ঔষধ ব্যবস্থাপত্র এবং হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণের জন্য ভর্তি না করেই তার সাথে অসৌজন্য মূলক আচরন করেন।

জেলা শাখার আহবায়ক আব্দুল লতিফ আকন্দ কর্তব্যরত ডিউটি ডাক্তার আফরোজা সুলতানা এর পরিবর্তে নিয়োজিত ডাক্তার নাজমুল হুদা রনিকে চিকিৎসা সেবা প্রদান ও হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুরোধ করলে তিনি ডাক্তার নাজমুল হুদা রনি ছাত্রলীগকে কটাক্ষ করে বিভিন্ন কুটউক্তি ও কথাবার্তা বলেন। পরবর্তীতে হাসপাতালে নিয়োজিত কর্মচারীগন সকাল ৭.৩০ ঘটিকার সময় আহবায়ককে হাসপাতলে ভর্তি করেন।

এ বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগ গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন-
সংবাদ সম্মেলনে যুগ্ন- আহবায়ক রাহাদ মাহামুদ রনি বলেন উল্লেখিত বিষয়ে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল আফিসার ডাঃ শাহিনর ইসলাম মন্ডল এবং তও¦াবধায়ক, ডাঃ বিধান চন্দ্র মজুমদার দ্বয়ের সহিত মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বদলী ডাক্তার (ডাঃ নাজমুল হুদা রনি) এর আচরন ও তাহার এহেন কর্মকান্ডোর বিরুদ্ধে মৌখিকভাবে অভিযোগ করা হইলে তাহারা দায় এড়িয়ে যাওয়ার চেস্টা করেন। 

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ একটি ঐতিহ্যবাহী এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর হাতে গড়া ছাত্রসংগঠন। ভাষা আন্দোলন থেতে শুরু করে অদ্যবধি পর্যন্ত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে ব্যাপক ভুমিকা পালন করে আসছে। সেখানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে নিয়ে হাসপাতালের ডিউটিতে নিয়োজিত বদলির ডাক্তার (ডাঃ নাজমুল হুদা রনি) এর কুটউক্তি বিভিন্ন কথাবার্তা বলার কারন কি তা আমাদের জানা নাই। একটি সরকারী হাসপাতালের জরুরী ডিউটিতে নিয়োজিত ডাক্তরের পরিবর্তে বদলী ডাক্তারের ডিউটি করা কোন নিয়মে বাংলাদেশের কোন হাসপাতালে আছে কি? জরুরী বিভাগে যে কোন অসুস্থ ব্যাক্তি যে কোন সময় চিকিৎসা গ্রহনের জন্য আসতে পারেন। একজন অসুস্থ মরনাপন্ন রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদান না করলে তাই রাজনৈতিক পরিচয় নিয়ে বিভিন্ন অকথ্য, অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজসহ তাহাকে চিকিৎসা সেবা প্রদান না করেই হাসপাল থেকে বাহির করে দেওয়ার হুমকী প্রর্দশন করার ক্ষমতা তিনি কোথায় পেলেন তাও আমাদের জানা নেই।
প্রিয় সত্যের সন্ধানী কলম বন্ধুগণ
আপনাদোর বিবিন্ন সময় আপনাদের বস্তনিষ্ট লিখনীর মাধ্যমে জাতির নিকট  সঠিক সমস্য তুলেধারর চেষ্ঠা করেছেন। সেই আলোকে আপনাদের মাধ্যমে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের এহেন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য জোর দাবী জানাচ্ছি।                   
 

ট্যাগ: