banglanewspaper

ডেস্ক রিপোর্ট: ঢাকায় তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত আধাবেলা হরতাল ডেকেছে। সুন্দরবনের কাছে বাগেরহাটে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ বন্ধের দাবিতে ডাকা বৃহস্পতিবারের এ হরতালকে সুন্দরবনকে বাঁচানোর হরতাল বলেছেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্যসচিব আনু মুহাম্মদ।

রামপালবিরোধী এ হরতালে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগেরও সমর্থন চেয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবারের হরতাল সম্পর্কে তিনি বলেন, বন বাঁচানোর জন্য সাধারণ ধর্মঘট বা হরতালের ইতিহাস বাংলাদেশের মানুষই তৈরি করছে। করবেই তো, এই দেশের জন্ম সেই মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে যার একটি প্রাণের গান ছিলো মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি। এখন সেই মানুষেরই গান মোরা একটি বনকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি।

 

প্রগতিশীল ছাত্র জোট বৃহস্পতিবারের হরতালে সমর্থন দিয়েছে। জোটের পক্ষ থেকে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হরতালের একই কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মসূচি ঘোষণা দেন জোটের সমন্বয়ক ও বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর যুগ্ম আহ্বায়ক ইকবাল কবীর। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, সরকার রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। সরকারের দমন-পীড়ন আর মিথ্যাচার, সুন্দরবন রক্ষা আন্দোলন আরও বেশি জনসম্পৃক্তা ও নৈতিক ভিত্তির উপর দাঁড়িয়েছে। জাতীয় কমিটির ঘোষিত বৃহস্পতিবারে হরতাল দেশ রক্ষার হরতাল। প্রগতিশীল ছাত্রজোটের পক্ষ থেকে আমরা এই হরতালে পূর্ণসমর্থন জানাই। সেই সাথে ঢাকার সকল শিক্ষার্থী-শিক্ষকদের ক্লাস, পরীক্ষা সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্য্ন্ত বন্ধ রেখে হরতালে শরিক হওয়ার আহ্বান জানাই।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ উদ্যোগে বাগেরহাটের রামপাল উপজেলায় ১৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতার একটি কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ চলছে। ফেব্রুয়ারিতেই রামপাল প্রকল্পের অর্থনৈতিক চুক্তি সম্পন্ন হওয়ার কথা। সুন্দরবনের কাছে হওয়ার কারণ দেখিয়ে শুরু থেকেই এ কেন্দ্রটির বিরোধীতা করছে বামপন্থী কয়েকটি সংগঠন। এই বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনের পরিবেশ-প্রতিবেশ মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে বলে প্রথম থেকে এর বিরোধিতা করে আসছে পরিবেশবাদীরা। তবে সরকার,বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী এর আগেও বিভিন্ন বক্তব্যে তথ্য-উপাত্ত দিয়ে বলেছেন, এই বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে সুন্দরবনের কোনো ক্ষতি হবে না।

শুরু থেকেই এই বিদ্যুৎকেন্দ্র বিরোধী আন্দোলনে রয়েছে তেল-গ্যাস খনিজ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি। গত ২৬ নভেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশ থেকে ২৬ জানুয়ারি ঢাকা মহানগরীতে সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করে তেল-গ্যাস রক্ষা জাতীয় কমিটি। বৃহস্পতিবারের হরতালে বিএনপির সমর্থনের কথা জানান দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

ট্যাগ: