banglanewspaper

ডেস্ক রিপোর্ট: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আশঙ্কাই কী তবে সত্য? 'নামে ও বেনামে', ফেসবুক আক্যাউন্ট এবং সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে তার মতামত, তার ভাবনা চিন্তা এবং তার বক্তব্যের বিকৃতি করা হচ্ছে, এই অভিযোগই তুলেছিলেন রাজ্যের 'অগ্নিকন্যা' তথা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  

১৮ ঘণ্টা আগে নিজের ফেসবুকের দেওয়ালে দীর্ঘ লেখনিতে যে অভিযোগ তিনি করেছেন তার 'তদন্তে নেমে' চোখ কপালে ওঠার জোগাড়। শুধু ফেসবুকেই তার নামে রয়েছে শতাধিক অ্যাকাউন্ট। সবকটি প্রোফাইলই যে জাল, তা একেবারেই নয়, তবে এই সব প্রোফাইলগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটিই 'সন্দেহজনক'। সম্ভবত জাল ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। মমতা ব্যানার্জি নামের একটি প্রোফাইলই কেবল মমতা ব্যানার্জি ব্যবহার করেন এবং সেটি বিশ্বাসযোগ্য। ফেসবুক সেখানে 'ব্লু টিক মার্ক'ও দিয়েছে। এই প্রোফাইলটি বাদ দিয়ে একাধিক প্রোফাইলেই নামে মমতা ব্যানার্জি থাকলেও কাজে তা 'মমতা সুলভ' নয়।

'জাল' অ্যাকাউন্টের কোনওটির প্রোফাইল ছবিতে রয়েছে বলিউড তারকা ক্যাটরিনা কাইফ। কোনও প্রোফাইলের নামে মমতা ব্যানার্জি থাকলেও প্রোফাইলটি একটি ছেলে হ্যান্ডেল করেছে। প্রোফাইল ছবি থেকে অ্যাকাউন্টের অ্যাক্টিভিটি, সবেই মিলেছে প্রমাণ। এক একটি অ্যাকাউন্টের প্রোফাইল ছবিতে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীই। আবার কোনওটিতে মুখ্যমন্ত্রীর নামের সঙ্গেই দেওয়া রয়েছে তার রাজনৈতিক দলের পরিচয়ও (অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেস)। বেশিরভাগ প্রোফাইলে শুধু মাত্র মমতা ব্যানার্জি নাম রয়েছে, নেই কোনও ছবি, নেই কোনও অ্যাক্টিভিটিও।

তাহলে কী এভাবেই ছড়িয়ে পড়ছে 'সাইবার সন্ত্রাস'? আশঙ্কা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এখন প্রশ্ন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আশঙ্কার পর কী আদৌ কোনও ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন? উত্তর দেবে সময়ই।  

উল্লেখ্য, ২৪ ঘণ্টা ডট কমের পক্ষ থেকে যখন এইসব আক্যাউন্ট ব্যবহারকারীদের সঙ্গে ম্যাসেঞ্জারে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়, তবে কোনও উত্তর এখনও পাওয়া যায়নি।

ট্যাগ: