banglanewspaper

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : হাতির লেজের লোম ছিঁড়ে তাবিজ করে পরলে রাজা হওয়া যায়- এই অন্ধবিশ্বাসে হাতিটাকে একনাগাড়ে উত্ত্যক্ত করছিল কিছু লোক। মাহুতের বারবার নিষেধ করা সত্ত্বেও কেউ কান দেয়নি তাতে।

হঠাৎই পিছন ফিরে শুঁড়ের ঝাপটা দেয় হাতিটা। তার ঝটকায় দেওয়ালে গিয়ে ছিটকে পড়েন কালু শেখ (৫৭) নামে এক ব্যক্তি। মাথায় গুরুতর আঘাত পাওয়ায় আর বাঁচানো যায়নি তাকে।

ঘটনাটি ঘটে শনিবার বিকেলে পশ্চিমবঙ্গের বালিয়াহাটে। অনিচ্ছাকৃত খুনের অভিযোগে রবিবার বিকেলে মাহুত গুলা দাসকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। লক্ষ্মী নামে ওই হাতির পাহারায় নিয়োগ দেয়া হয়েছে এক সিভিক ভল্যান্টিয়ার।

জানা যায়, উত্তরপ্রদেশ থেকে হাতি নিয়ে এসে গত এক সপ্তাহ ধরে বড়ঞা ও খড়গ্রামে ঘোরাফেরা করছিলেন তিন মাহুত। বাচ্চারা তার পিঠে চড়ে মজা করলেও ঝামেলা বাধায় বড়রা। তাবিজে হাতির লেজের লোম পুরে হাতে বাঁধলেই রাজার মতো ধনী আর হাতির মতো শক্তিশালী হওয়া যাবে, এমন ধারণা থেকে অনেকেই চেষ্টা করছিলেন লেজের লোম ছেঁড়ার। এক পর্যায়ে বিরক্ত হয়ে আক্রমণ করে হাতিটা।

কালুর ভাই সহরদ্দি শেখ অবশ্য দাবি করেছেন, তার ভাই হাজির লেজের লোম ছিড়তে যাননি। ভাইঝির বাড়ি থেকে ফেরার পথে হাতিটা হঠাৎ তার ভাইকে আক্রমণ করে। কালুর মেয়ে কাবিরুন বিবির অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ হাতির মাহুত গুলা দাসকে গ্রেফতার করেছে।

ট্যাগ: