রাশিয়াকে রুখতে সংঘাতপূর্ণ ইউক্রেনে ২০০ সেনা পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। ইউক্রেন-সংকট নিয়ে পশ্চিমা দেশের সঙ্গে রাশিয়ার তীব্র টানাপোড়েন মধ্যে সেনা পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিল পেন্টাগন। পূর্ব ইউক্রেনে রাশিয়ার সহায়তায় দেশটির রুশপন্থী বিদ্রোহীরা সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে।   

বুধবার পেন্টাগন জানায়, চলতি মাসের শেষে ইউক্রেনের বার্ষিক কুচকাওয়াজে অংশ নিতে এ সব সেনা সদস্য পাঠানো হচ্ছে। পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর অন্যান্য দেশের সেনারাও ওই কুচকাওয়াজে অংশ নেবে বলে জানা গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক মুখপাত্র কর্নেল স্টিভেন ওয়ারেন এক বিবৃতিতে জানান, ইউক্রেন সরকারের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশের অংশ হিসেবে এ সব সেনা পাঠানো হচ্ছে।

রাশিয়াপন্থী বিদ্রোহীদের মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র এই প্রথমবারের মত প্রকাশ্য সামরিক সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিল।

ওয়ারেন জানান, আগামী ১৩ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর ইউক্রেনের ইয়াভোরিভ শহরে অনুষ্ঠিতব্য ওই বার্ষিক অনুশীলনে এক ডজনের বেশি দেশের সেনারা অংশ নেবে। এটি শান্তিপূর্ণ অনুশীলন।
এ ছাড়া আগামী সোমবার থেকে বুধবার পর্যন্ত কৃষ্ণ সাগরে অপর এক অনুশীলনে মার্কিন নৌসেনাদের অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে।

সামরিক বিশ্লেষকদের মতে, রাশিয়াকে মোকাবিলায় পশ্চিমাদেশ বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনে সেনা পাঠাচ্ছে। এ ফলে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যকার সম্পর্ক আরো জটিল করে তুলবে।