banglanewspaper

মোস্তফা ইমরান রাজু, মালয়েশিয়া : জাতীয় শ্রমিকলীগ মালয়েশিয়া শাখার উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিয়াল্লিশতম শাহাদৎবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার তামিং জায়ায় সংগঠনটির নিজস্ব কার্যালয়ে এ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে ছিলেন মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান কামাল। 

জাতীয় শ্রমিক লীগ মালয়েশিয়া শাখার সভাপতি নাজমুল ইসলাম বাবুলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এস এম আবুল হোসেনের সঞ্চালানায় এসময় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দলটির সহ-সভাপতি শাহ আলম হাওলাদার। 

প্রধান অতিথি কামরুজ্জামান কামাল তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ একে অন্যের সঙ্গে ওতোপ্রতভাবে মিশে আছে।যতদিন বাংলাদেশের একটি ধুলিকনা থাকবে ততদিন বঙ্গবন্ধু এদেশের মানুষের হৃদয়ে থাকবে। শোকাবহ এই দিনে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানকে হারিয়ে বাংলাদেশ গভীর অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়েছিলো বলে মন্তব্য করেন এ নেতা।   

কামরুজ্জামান সকলকে আহ্বান জানান স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যা মোকাবেলায় অসহায় বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়ানোর। মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দশ লক্ষ টাকা বন্যাদূর্গত মানুষের জন্য দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। 

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন মালয়েশিয়া আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মামুন উর রশিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনির, শাখাওয়াত হক জোসেফ, প্রচার সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সিরাজ, মোখলেস মমতাজ উদ্দিন, যুবলীগের আহ্বায়ক তাজকির আহমেদ, জহিরুল ইসলাম জহির, মাসুদুল আলম রনি, কৃষকলীগের মালয়েশিয়া শাখার সভাপতি ইব্রাহিম কে রাজা, শ্রমিক লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন। 

সভাপতির বক্তব্যে নাজমুল ইসলাম বাবুল বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যুদ্ধ করে লক্ষ প্রানের বিনিময়ে আমরা একটি স্বাধীন, সার্বভৌম দেশ পেয়েছি। তবে আমাদের দূর্ভাগ্য যে আমরা এই মহান নেতাকে দেশ স্বাধীনের কয়েক বছরের মধ্যে হারিয়েছি। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে আজ আমাদেরকে প্রবাসে আসতে হতো না বলে মন্তব্য করেন নাজমুল ইসলাম।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন যুবলীগের রায়হান রাজু, কামরুল ইসলাম জাতীয় শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি মো: সেলিম, মো: আলম, যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন টবলু, সহ-সাধারণ সম্পাদক সাইদুল ইসলাম, শ্রী রিপন চন্দ্র, সহ-সাধারণ সম্পাদক নয়ন প্রামানিক, শ্রী সুভাষ চন্দ্র, প্রচার সম্পাদক ইমন মহিউদ্দিন, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক রেজওয়ান রহমানসহ অনেকে। 

পরে পনের-ই আগষ্ট নিহত বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা তকিউল্লাহ। 

 


 

ট্যাগ: