banglanewspaper

ডেস্ক রিপোর্ট : পানির রং কি? চোখ বুজেই উত্তর দেয়া যায়, পানি বর্ণহীন। তবে পারিপার্শ্বিক অবস্থার বিবেচনায় অবস্থানভেদে রং আলাদা হতেই পারে। কিন্তু সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হচ্ছে, সেনেগালের উপকূলে দেখা মিলে এক অদ্ভুত হ্রদের যার পানির রং গোলাপী। নাম লেক রেতবা।

সেনেগালের রাজধানী ডাকার থেকে ৩০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে গেলে দেখা মিলবে এই গোলাপী হ্রদের। হ্রদের তীরে লবণের পাহাড়, লেকের গোলাপি জলরাশি এবং অন্যপাড়ের সোনালি বালুকাবেলা তৈরি করে এ অপার্থিব সৌন্দর্য। প্রায় তিন বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে বিস্তৃত এ হ্রদটি সমুদ্রপৃষ্ঠের গভীরে হওয়ায় লবণাক্ততার পরিমাণ প্রকট। তাই, যে কেউ সহজেই পানিতে ভেসে থাকতে পারবে।

এমন গোলাপি লেক কিন্তু এটিই একমাত্র নয়; সেনেগালের লেক রেতবা ছাড়াও গোলাপি লেক আছে অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, স্পেন ও আজারবাইজানে। এক অস্ট্রেলিয়ায়ই আছে তিনটি—পিঙ্ক লেক, হুট লেগুন ও লেক হিলিয়ের। এই লেকগুলোর পানি গোলাপি হওয়ার মূল কারণ অতিরিক্ত খনিজ পদার্থের উপস্থিতি। সেনেগালের এই লেক রেতবাও তাই। এখানকার পানিতে খনিজ পদার্থের পরিমাণ ৪০ শতাংশ!

‘ডুনালাইলা সালিনা’ শৈবালের জন্য পানির রঙ হয় গোলাপি। শৈবালগুলো এক ধরনের রঞ্জক পদার্থ উৎপন্ন ও শোষণ করে সূর্যরশ্মির সংস্পর্শে হয় অনেক শক্তিশালী। শুষ্ক মৌসুমেও এ হ্রদের পানি উজ্জ্বল গোলাপি হলেও বর্ষায় আসে ফিকে হয়ে।

লেক রেতবার আরেক নাম লেক রোজ, মানে গোলাপি লেক। এমন নামকরণের কারণ হলো, দূর থেকে দেখলে মনে হয়, কেউ যেন পুরো একটা লেকের মধ্যে স্ট্রবেরির মিল্কশেক বানিয়ে রেখেছে। আবার মনে হতে পারে পুরো লেকের পানিতেই কারো রক্ত মিশে আছে।

আগে তো ভাবা হতো, এটি একটি অভিশপ্ত হ্রদ। ভয়ংকর ওই লেকে কোনো জীবিত প্রাণী থাকতেই পারে না। এখন কিন্তু ওই লেকটাই স্থানীয় মানুষদের জীবনে আশীর্বাদ হয়ে উঠেছে। মাছ সংরক্ষণে লবণ আহরণের উৎকৃষ্ট জায়গা এটি। হ্রদের পানি গোলাপি হলেও সেখানকার লবণ কিন্তু ঝকঝকে সাদা।

লেক রেতবা শুধু সেনেগালবাসীর কাছেই বিস্ময়ের নয়, বিশ্বের ভ্রমণপিপাসুদের কাছেও সমান আকর্ষণীয়।

ট্যাগ: