banglanewspaper

ঘুমের মধ্যেই পায়ে হঠাত্‍ হ্যাঁচকা টান। থাই ও কাফ মাসলে ক্র্যাম্প। ব্যথার চোটে ঘুমের দফারফা। প্রবল ব্যথায় কার্যত ডাক ছেড়ে কাঁদার মতো অবস্থা। আস্তে আস্তে কিছুক্ষণ পরে ব্যথাটা চলে যায় ঠিকই। কিন্তু তার পরেও রয়ে যায় হালকা একটা ব্যথা।

বিশেষেজ্ঞদের দাবি, ৩টি কারণে ঘুমের মধ্যে পায়ে ক্র্যাম্পের সমস্যা হয়। প্রথম কারণ, ডিহাইড্রেশন অর্থাত্‍ শরীরে পানির অভাব। দ্বিতীয় কারণ, পটাসিয়ামের অভাব। তৃতীয় কারণ, ম্যাগনেসিয়ামের অভাব। খুব সহজে ঘরোয়া কৌশলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি সম্ভব।

- পানির অভাব থেকে মুক্তির সবচেয়ে কার্যকর ও সহজ উপায়, বেশি করে জল খাওয়া। তবে সারাদিন ধরে যদি পানি খাওয়ার পরিমাণ বাড়ানো সম্ভব না হয়, তাহলে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক গ্লাস হালকা গরম পানি খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। হালকা গরম পানি তাপমাত্রা আমাদের শরীরের রক্তের তাপমাত্রার কাছাকাছি। ফলে গরম পানি অতি দ্রুত মাংসপেশি শোষণ করে নিতে পারে। ডিহাইড্রেশন থেকেও তাই দ্রুত মুক্তি মেলে।

- পটাসিয়ামসমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খেতে হবে। পালং শাক, মিষ্টি আলু, নারকেলের দুধ, দই, কলা, মাশরুম বেশি করে খেলে শরীরে পটাসিয়ামের ঘাটতি মেটে।

- মাছ, ডার্ক চকোলেট, পালং শাক, মুসুর ডাল, কুমড়ো বীজ, বাদাম, ঝোলাগুড় প্রভৃতি খাবারে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম থাকে। বিশেষজ্ঞদের দাবি, এইসব খাবার বেশি করে খেলে ম্যাগনেসিয়ামের অভাব মিটবে।

ট্যাগ: