ফের দাম বাড়তে পারে বিদ্যুতের। প্রতি ইউনিট খুচরা বিদ্যুতের দাম গড়ে ৬ থেকে ১৪ শতাংশ এবং পাইকারি বিদ্যুতের দাম প্রায় ১৫ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছে বিতরণকারী সংস্থা-কোম্পানিগুলো। ওই প্রস্তাব যাচাই-বাছাই শেষে আজ সোমবার গণশুনানি শুরু করছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।

২০০৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত পাইকারি পর্যায়ে ৫ বার এবং খুচরা গ্রাহক পর্যায়ে ৭ বার বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে। সর্বশেষ ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর নিত্যব্যবহূত পণ্যটির দাম বাড়ানো হয়।

জানা যায়, বিতরণ কোম্পানিগুলোর কাছে পাইকারি বিক্রির ক্ষেত্রে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম ৭২ পয়সা (প্রায় ১৫ শতাংশ) বৃদ্ধির প্রস্তাব দিয়েছে পিডিবি। বিভিন্ন বিতরণ কোম্পানিগুলো গ্রাহক পর্যায়ে ৬ থেকে ১৪ শতাংশ পর্যন্ত প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব দিয়েছে।

খুচরা গ্রাহক পর্যায়ে ডিপিডিসি গড়ে ৬ দশমিক ২৪ শতাংশ, ডেসকো ৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ, ওজোপাডিকো ১০ দশমিক ৩৬ শতাংশ, আরইবি ১০ দশমিক ৭৫ শতাংশ এবং পিডিবি ১৪ শতাংশ পর্যন্ত দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। কয়েকটি কোম্পানি গ্রাহক পর্যায়ে ডিমান্ড চার্জ ও সার্ভিস চার্জ বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছে।

এ দিকে বিদ্যুতের মূল্য পুনঃনির্ধারণে সংস্থাগুলোর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আজ সোমবার রাজধানীর কাওরান বাজারে টিসিবি মিলনায়তনে গণশুনানি শুরু হচ্ছে। আগামী ৪ অক্টোবর পর্যন্ত ৭ কর্মদিবসে প্রতিদিন  সকাল ১০ থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত এ শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ বিদ্যুত্ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) পাইকারি (বাল্ক) ও খুচরা মূল্যহার পরিবর্তনের আবেদনের ওপর যথাক্রমে আজ এবং আগামীকাল মঙ্গলবার শুনানি হবে। মূল্যহার পরিবর্তনে আরইবির প্রস্তাবের ওপর বুধবার এবং ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ডিপিডিসি) প্রস্তাবের ওপর বৃহস্পতিবার শুনানি গ্রহণ করা হবে।

আগামী ২, ৩ ও ৪ অক্টোবর যথাক্রমে ঢাকা ইলেক্ট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি (ডেসকো), ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো) এবং নবগঠিত নর্থ ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (নওজোপাডিকো) প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি অনুষ্ঠিত হবে।