নিউজ ডেস্ক: রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, দুর্নীতির কারণে মানুষ কষ্টে আছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে সমাজের প্রতিটি স্তর থেকে দুর্নীতি দূর করতে হবে। দুর্নীতি সমাজের জন্য একটি অভিশাপ।

গতকাল সোমবার দুপুরে কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর কলেজের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন রাষ্ট্রপতি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, উন্নয়নের জন্য স্থিতিশীলতা অপরিহার্য। গণতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থাকবে, মতাদর্শের পার্থক্য থাকবে, এটাই গণতন্ত্রের সৌন্দর্য। তবে দেশের উন্নয়নে রাজনৈতিক মতবিরোধ থাকলেও সবাইকে দেশের উন্নয়নে একই লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, যতদিন বেঁচে থাকবেন ততদিন সাধারণ মানুষের পাশে থাকবেন বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, ‘দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে যাব। আমার চাওয়ার আর কিছু নেই। দেশের সর্বোচ্চ আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছি। আমি এখন আর রাজনীতি করি না, আমার রাজনীতি করা যাবে না। আপনাদের সঙ্গে মিলেমিশে বাকি জীবন পার করতে চাই। সুখী সমৃদ্ধশালী বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ দেখে যেতে চাই।’

রাষ্ট্রপতি নিজের রাজনীতি সম্পর্কে স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে বলেন, ছয় দশক ধরে রাজনীতি করছি। রাজনীতির মধ্যে দিয়েই বড় হয়েছি। তবে এখন আর রাজনীতি করি না। রাজনীতি করার সুযোগও নেই। আমার কাছে সব দলের নেতা-কর্মীরা আসবে—এটাই স্বাভাবিক

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি মোঃ আজিজুর রহমান। অন্যান্যের মধ্যে  বক্তব্য রাখেন কিশোরগঞ্জ ৫ (বাজিতপুর-নিকলী) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ মোঃ আফজাল হোসেন, সংসদ সদস্য রেজোয়ান আহমদ তৌফিক, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা, অ্যাডভোকেট মোঃ জিল্লুর রহমান, মঞ্জুর আহমদ, মিজবাহ উদ্দিন আহমেদ. শেখ নূরুন্নবী বাদল, আবুল মনসুর বাদল, সুব্রত পাল, ছারওয়ার আলম, আজিজুল হক রানা, আলহাজ্জ মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ। এর আগে রাষ্ট্রপতি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে চারটি ব্রিজসহ আরও কয়েকটি স্থাপনা উদ্বোধন করবেন।