banglanewspaper

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইতালির ফ্লোরেন্সে ২৫ জন মাতাল দুর্বৃত্তের দ্বারা ধর্ষণের শিকার হতে যাওয়া তরুণী গ্যাইয়া গুয়ার্নোত্তাকে বাঁচিয়েছেন বাংলাদেশি অভিবাসী ফুল বিক্রেতা হোসেইন আলমগীর।

ডেইলি মেইল জানায়, এই তরুণী প্রায় ধর্ষণের শিকার হতে যাচ্ছিলেন, কিন্তু আলমগীর এগিয়ে এলে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

পেশায় ফটোগ্রাফার গায়া গুরনোত্তা এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে জানান, মাতালরা একজোট হয়ে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। ভুল করে যৌনকর্মী ভেবে তারা গায়ার পিছু নিয়েছিল বলেও জানান তিনি। তাকে পালাতে দেখে অশ্লীল ভাষায় গালিও দেন ওই যুবকরা।

তিনি লেখেন, ‘রাত ১১টা ৩০ মিনিট নাগাদ একা বের হয়েছিলাম রাস্তায় হাঁটতে। আমি অাসলে হাঁটতে ভালোবাসি। আমি ফ্লোরেন্স শহরকে খুব ভালোবাসি; সেই সঙ্গে রাত আমার খুব পছন্দের সময়।’

তিনি আরও লেখেন, ‘এরপর সেই মাতালরা আমার পিছু নিয়ে বলতে থাকে, আমাদের সঙ্গে চলো, মজা করি, ২৫ জন একসঙ্গে, তোমার রাত খুব ভালো কাটবে।’

নিজেদের প্রস্তাবকে দয়া এবং অনুগ্রহ হিসেবেও বর্ণনা করেন তারা। আর তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করাটা হবে কোনো নারীর বোকামি। এতো লোকজনের প্রস্তাব একসঙ্গে পাওয়া যাবে না বলেও তারা দাবি করেছে বলে জানান গায়া।

একপর্যায়ে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নেশাদ্রব্য খাওয়ানোর চেষ্টা করে মাতালরা। তখন পালিয়ে যেতে চেষ্টা করলে সেই মাতাল দুর্বৃত্তরা গুয়ার্নোত্তাকে টেনে অপরিচিত স্থানে নিয়ে যেতে থাকে। তার চশমাও সরিয়ে ফেলে তারা।

এসময় গোলমাল উপলব্ধি করে এগিয়ে আসেন ফুল বিক্রেতা হোসেইন আলমগীর। তিনি ধাওয়া করে দুর্বৃত্তদের তাড়িয়ে দেন। গুয়ার্নোত্তাকে উদ্ধারের পর তাকে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যান আলমগীর, তাকে খেতে দেন। গুয়ার্নোত্তাকে একটি টাওয়েল দেন পরিষ্কার হতে। তাকে একটি গোলাপও উপহার দেন।

আলমগীরের ব্যবহারে অভিভূত গুয়ার্নোত্তা লিখেছেন: হোসেইনের মতো মানুষের জন্য পৃথীবিকে ধন্যবাদ জানাই, যারা কোন প্রতিদান ছাড়াই সাহায্য করে। তার মুখটা আমি কখনও ভুলবো না।

২০০৫ সাল থেকে ইতালিতে বাস করছেন আলমগীর।

ট্যাগ: