banglanewspaper

ভারত সরকারের অর্থায়নের ১৫টি উন্নয়ন প্রকল্প এবং ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনের নতুন চ্যান্সেরি কমপ্লেক্সের উদ্বোধন করেছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। আজ সোমবার রাজধানীর বারিধারায় ভারতীয় হাইকমিশনের নতুন চ্যান্সেরি ভবনসহ এসব প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়। 

প্রকল্পগুলোর মধ্যে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, তথ্য-প্রযুক্তি, পানি সরবরাহ এবং সামাজিক সুরক্ষা খাতের বিভিন্ন প্রকল্প রয়েছে, যেগুলো বাংলাদেশ সরকারের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে বাছাই করা হয়েছে। প্রকল্পগুলোর জন্য ব্যয় হবে ৭১ কোটি ৬৪ লাখ টাকা; যা ভারত অর্থায়ন করবে। 

৭২ কোটি টাকা ব্যয়ের এসব উন্নয়ন প্রকল্পের মধ্যে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, তথ্য-প্রযুক্তি, পানি সরবরাহ এবং সামাজিক সুরক্ষা খাতের বিভিন্ন প্রকল্প রয়েছে, যেগুলো বাছাই করা হয়েছে বাংলাদেশ সরকারের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে।

এর মধ্যে একটি প্রকল্পের আওতায় পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় ১১টি পানি শোধনাগার নির্মাণ করা হচ্ছে, যেখানে লবণাক্ত পানি শোধন করে দেড় লাখ মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার মত সুপেয় পানি উৎপাদন করা যাবে। 

একটি প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন স্থানে ৩৬টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করা হবে। আরেকটি প্রকল্পে নতুন করে নির্মাণ করা হবে রমনা কালী মন্দির। 

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি বাহিনী রমনা কালী মন্দির গুঁড়িয়ে দিয়েছিল। সেখানে মূল মন্দির ছাড়াও একটি পাঁচ তলা অতিথিশালা নির্মাণ করা হবে। মন্দির প্রাঙ্গণে বসানো হবে একটি গভীর নলকূপ। এছাড়া মন্দির মূল ফটকও নির্মাণ করা হবে।

ভারতীয় হাই কমিশন ইতোমধ্যে গুলশান ১ নম্বর থেকে বারিধারার কূটনৈতিক জোনের নতুন চ্যান্সেরি কমপ্লেক্সে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ সোমবার তার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন।

এর আগে গতকাল রোববার দুপুরে একটি বিশেষ ফ্লাইটে নয়াদিল্লী থেকে ঢাকা পৌঁছান সুষমা স্বরাজ। এসময় তাকে স্বাগত জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।  এয়ারবেইজের স্বাগত চা-পর্ব শেষ করে বিকেলে দুই মন্ত্রী যোগ দেন দুই দেশের মধ্যে চতুর্থ যৌথ পরামর্শক কমিশনের বৈঠকে।

বৈঠকের পর মাহমুদ আলী বলেন, বাংলাদেশের জন্য ভারত সবচেয়ে ‘গুরুত্বপূর্ণ ও বিশ্বাসভাজন’ প্রতিবেশী রাষ্ট্র এবং গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন অংশীদার। 

ট্যাগ: