banglanewspaper

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) থাকতে একশ জন মমতা এলেও পশ্চিমবঙ্গকে বাংলাদেশ বানাতে পারবেন না। বলেছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাহুল সিনহা। শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কোলকাতায় দলীয় এক সমাবেশে ওই মন্তব্য করেন।

সংখ্যালঘু মুসলিমদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আমরা আপনাদের মর্যাদাসম্পন্ন নাগরিক করতে চাই, ভোটার বানাতে চাই না।’

তিনি বলেন, ‘এ রাজ্য হিন্দু-মুসলিম-শিখ-খ্রিস্টান সকলের কিন্তু এখানে বিভিন্ন ধর্ম নিয়ে আলাদা আলাদা লোকাচার করা হচ্ছে। এ জিনিস বরদাস্ত করা যায় না।’

রাহুল সিনহা মুসলিমদের অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী মমতার হিজাব পরা নিয়ে তীব্র কটাক্ষ করেন।  

রাহুল সিনহা বলেন, ‘হয় আপনি হিজাব পরে আছেন, নয়তো বোরখা পরে আছেন, অথবা হাত তুলে আল্লাহকে ডাকছেন অথবা নামাজ পড়ার তামাশা করছেন।’  

তিনি বলেন, ‘এখানে যদি কোনো মুসলিম থেকে থাকেন তাহলে বুকে হাত দিয়ে বলুন, হিন্দু হয়ে কেউ মুসলিম সাজার নাটক করলে আল্লাহ্ তার কী শাস্তি বিধান করবেন?’

রাহুল সিনহার দাবি, ‘হাদিস বলছে, অন্য কোনো ধর্মের মানুষ নামাজ পড়তে পারে না, রোজা রাখতে পারে না। যদি এ কাজ কেউ কেউ করে সে মুসলিমদের সবচেয়ে বড় শত্রু। সুতরাং আপনারা বলুন মুসলিমদের সবচেয়ে বড় শত্রু কে?’

তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দেয়া মুকুল রায় তার ভাষণে প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, আগামীদিনে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভার নির্বাচনে বিজেপি ক্ষমতায় আসবে।

পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, ‘কোলকাতায় মিটিং-মিছিল করতে দেয়া হচ্ছে না। কিন্তু রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্বের জন্য মিছিল হচ্ছে। পুলিশ নিরাপত্তা দিচ্ছে। দেখে লজ্জা হয়! মদ খেয়ে মারা গেলে এখানে দু’লাখ টাকা দেয়া হয়। হজ করলে দশ লাখ টাকা। কী ধরণের তোষণ এটা? দুর্গাপুজোর বিসর্জনে সমস্যা, সরস্বতী পুজো বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। আমরা কি এই বাংলাই চেয়েছিলাম?’

রাজ্যে ক্ষমতাসীন তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে ‘দুর্নীতি’ ও ‘গণতন্ত্র হত্যা’র অভিযোগে বিজেপি’র পক্ষ থেকে প্রতিবাদ সমাবেশ করা হয়। এতে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গিয়সহ অন্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র : পার্স টুডে 

ট্যাগ: