banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিবেদক: একজন গানের আরেকজন কবিতার। দুইজনের জন্মই নেত্রকোনায়। নেত্রকোনা অনেক গুণী মানুষের জন্ম দিয়েছে। তারা দুজনও এমনই গুণী মানুষ। প্রথমজন কয়েক ঘণ্টা আগে এপারের মায়া ছেড়ে ওপারে চলে গিয়েছেন। আরেকজন অনুজের মৃত্যুতে শোকাহত।

প্রথমজন বারী সিদ্দিকী। আর দ্বিতীয়জন হলেন কবি নির্মলেন্দু গুণ। বারী সিদ্দিকীর বাড়ি চল্লীশা থেকে কবি নির্মলেন্দু গুণের বাড়ি বারহাট্টার কাশতলার দূরত্ব ১৫ থেকে ২০ মাইল। তবে দুজনেই কখনো কারো বাড়িতে যাননি। 

তবে কথা ছিল একে অপরের জন্মভিটা দেখবেন। সেই কথা আর রাখা হয়নি। কারণ বারী সিদ্দিকী আজ শেষবারের মতো নিজ বাড়িতে যাচ্ছেন অন্তিম শয়ানে শায়িত হতে।

তারই মৃত্যুতে শোকাহত কবি নির্মলেন্দু গুণ  আরটিভি অনলাইনের সঙ্গে স্মৃতিচারণ করেছেন।  

নির্মুলেন্দু গুণ বলেন, বারীর সঙ্গে আমার অনেক দিন আগে থেকেই পরিচয় ছিল। তিনি ‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’ ছবিতে আমার লেখা ‘এই সুন্দর দুনিয়া তো আমি গড়ি নাই’ গানটি গেয়েছিলেন।

তিনি আরো বলেন, আমার বারহাট্টার বাড়ি ‘কাশবনে’ যাওয়ার কথা ছিল বারী সিদ্দিকীর। আমারো শরীর ভালো না থাকায় আমি তার এখানে যেতে পারিনি।’
গানের কবি বারী সিদ্দিকীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে নির্মলেন্দু আরো বলেন, আমাদের লোকসঙ্গীতকে তিনি অন্য এক উচ্চতায় তুলেছিলেন। তার আত্মার শান্তি কামনা করি।

শুয়াচান পাখি’-খ্যাত প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী বারী সিদ্দিকী রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে বৃহস্পতিবার দিনগত রাত আড়াইটায় মারা যান। 

তার প্রথম জানাজা সকাল সাড়ে নয়টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে এবং দ্বিতীয় জানাজা সকাল সাড়ে ১০টায় বাংলাদেশ টেলিভিশন প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাদ আছর নেত্রকোনা কলেজ মাঠে জানাজা শেষে নিজ গ্রাম চল্লিশার কারলি গ্রামের বাউল বাড়িতে তাকে দাফন করা হবে।  
 

ট্যাগ: নির্মলেন্দু গুণের বাড়ি যাওয়া হয়নি বারী সিদ্দিকীর