banglanewspaper

বিধু ভূষণ দাস বাচ্চু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : মেঘনা নদীর পাড় ঘেষে চর আলেকজান্ডার। এখানে খেলা চলে জোয়ার-ভাটার। উঁচু ঢেউ আ‍ঁছড়ে পড়ে। জেলেরা ধরে রুপালি ইলিশ। মনোরম এ পরিবেশ কার না ভালো লাগে। তাইতো ছেলে-বুড়ো সবাই আলেকজান্ডার মেঘনা পাড়ে ভিড় জমায়।

চর আলেকজান্ডার। এটি লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলায়। অব্যাহত ভাঙনে পৌর শহরের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে মেঘনা নদী। উপজেলা পরিষদের বারান্দা থেকে মাত্র ১০০ গজের দূরত্বে মেঘনা পাড়। ভাঙন রোধে এ পাড়ে বাঁধ হয়েছে। বাঁধের ওপর জড়ো হয় সবাই। উপভোগ করে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। এখানে নতুন বালুর বেলাভূমি। নদীর ঢেউএ জলের মিষ্টি সুর, এসবে মুগ্ধ হয় আগত সবাই। এখানে আসলে বাতাসে দোলে শরীর ও মন, তাই তো সবাই বার-বার ছুটে আসে এ পাড়ে।

রামগতি উপকূলীয় উপজেলা। এ জনপদে বিনোদনের কোনো মাধ্যম নেই। তবে, আলেকজান্ডার মেঘনা নদীর পাড়ে ছুটে এলে মনের খোরাক মিটে যায়। তাই তো দলবেঁধে পরিবারের সবাই মিলে ভিড় জমায় এখানে। প্রত্যেক ঈদে এখানে প্রাণের উচ্ছ্বাস বেড়ে যায়। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসছে বিনোদন প্রেমীরা।

ঈদ ও পূজা পার্বণ উপলক্ষে বিভিন্ন স্থান থেকে দল বেঁধে নদী পাড়ে এসে প্রাণের উচ্ছ্বাসে মেতে উঠে সবাই। নৌকা চড়ে মেঘনা ঘুরছে। পরিবারে সদস্যদের সঙ্গে আসা ছোট শিশুরাও উল্লাসে ভাসে এ পাড়ে এসে।

শহর থেকে আসা নিদ্রা, মম,নিঝু ও সুদিপ্ত জানান, শহরের বন্দি জীবন থেকে নদীর পাড়ে এসে অনেক স্বস্তি লাগছে। তাদের মতে আলেকজান্ডার মেঘনা পাড়ের প্রকৃতি সত্যিই ভালো লাগার মত তবে প্রশাসন যদি এখানে ওয়াশরুমের ব্যবস্থা করতো তাহলে আরো ভালো হতো।

লিপি নামে এক তরুণী বলেন, মেঘনা পাড়ে এসে কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতে যাওয়ার স্বপ্ন কিছুটা হলেও পূরন হয়েছে।

মেঘনা নদীর ভয়াবহ ভাঙনে আলেকজান্ডার শহর যখন মারাত্মক হুমকির মুখে, ঠিক এমনি মুহূর্তে সেনাবাহিনী নদীর পাড় রক্ষায় বাঁধ নির্মান করে। বাঁধ নির্মান কাজে সবচাইতে বড় ভূমিকা রেখেছেন লক্ষ্মীপুর ৪ আসনের সংসদ আব্দুল্লা আল মামুন।

ট্যাগ: Banglanewspaper লক্ষ্মীপুর আলেকজান্ডার মেঘনা নদী রক্ষা বাঁধ কক্সবাজার