banglanewspaper

ক্ষমতা গ্রহণের দু’বছরের মাথায় নতুন করে জনগণের রায় নিতে মধ্যবর্তী নির্বাচন ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। মেয়াদ শেষের দু’বছর আগেই এ নির্বাচন ডাকলেন তিনি।

এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে আবে বলেন, ২১ নভেম্বরেই তিনি পার্লামেন্ট ভেঙে দেবেন এবং বিক্রয় কর বাড়ানোর পরিকল্পনাও পিছিয়ে দেবেন।

বিক্রয় কর ১০ শতাংশ বাড়ানোর পদক্ষেপটি ২০১৭ সালের এপ্রিল পর্যন্ত পিছিয়ে দিতে চান বলে জানিয়েছেন আবে।

দেশের নাজুক অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দু’বছর আগে আবে ক্ষমতায় এসেছিলেন। কিন্তু এ কাজ করতে হিমশিম খেতে হয়েছে তাকে। তার জনপ্রিয়তাও কমে এসেছে। তবে তারপরও নির্বাচনে তিনি জিতবেন বলেই মনে করা হচ্ছে। এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে।

বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ জাপানে আকস্মিক অর্থনৈতিক মন্দা দেখা দেয়ায় দেশটিতে বিপুল অঙ্কের সরকারি ঋণ কমাতে বিক্রয় কর বাড়ানোর পদক্ষেপ পেছানোর পাশাপাশি আগাম নির্বাচন আহ্বানের পট প্রস্তুত হয়।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, জাপানের অর্থনীতি মন্দার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এবং বছরের শেষ দিকে এসে তা আরো সঙ্কুচিত হওয়ায় এখন কর বাড়ানো দেরী করার বিষয়টিতে ভোটারদের রায় নেয়ার সময় এসেছে। ডিসেম্বরে মধ্যবর্তী নির্বাচনের মধ্য দিয়েইতা করা যেতে পারে।

জাপানে বিপুল অঙ্কের সরকারি ঋণের বোঝা কমাতে ২০১২ সালের পূর্ববর্তী সরকার বিক্রয় কর বাড়ানোর এ পদক্ষেপ নিয়েছিল।

গত এপ্রিলে প্রথম দফায় বিক্রয় বাড়িয়ে ৫ শতাংশ থেকে ৮ শতাংশ করেছিল সরকার। এরপর আগামী বছর অক্টোবরে দ্বিতীয় দফায় বিক্রয় কর বাড়ানোর পরিকল্পনা ছিল সরকারের। এখন নতুন সিদ্ধান্তে করবৃদ্ধি অন্তত ১৮ মাস পিছিয়ে গেল।

ট্যাগ: