banglanewspaper

আমার নাম শুভ্রা মাইশা অবন্তিকা (অরিত্রী)। আমি মেয়ে মানুষ। বয়স আঠাশ বছর দুই মাস (প্রায়)। আমি বাংলাদেশী। আমার জন্ম দিনাজপুরে হলেও ছোট থেকে বড় হয়েছি ময়মনসিংহ শহরে। এরপর ঢাকায় পড়ালেখা শেষ করে, একটি বিখ্যাত বিদেশী প্রতিষ্ঠানে গবেষক হিসবে চাকরী শুরু করেছি কয়েক বছর হল। বর্তমানে আমি ভারতের হিমাচল প্রদেশের কুলু মানালী নামের একটি জায়গায় আমার অফিস। জায়গাটা খুবই সুন্দর। চাকরী ছাড়াও আমি শখের বসে একটু আধটু মডেলিংও করেছি।

মেয়েদের ফেইসবুকিং করা যে কতটা সমস্যা, তা আমি গত চব্বিশ ঘন্টায় হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছি। এর আগে আমি ছেলে/মেয়ে বোঝা যায় না, এরকম একটা নাম দিয়ে ফেইজবুকিং করতাম। আমার ছবি ব্যাবহার করতাম না। কিন্তু গতকাল আমার আসল নাম এবং ছবি ব্যাবহার করতে গিয়ে ভয়াবহ সমস্যায় পড়ে গেলাম। আমার বন্ধুসংখ্যা একহাজারেরও কম ছিল। কিন্তু প্রচুর ফ্রেন্ড রিকোয়েষ্ট পাওয়া এবং এক্সেপ্ট করার পর আজ সকালে দেখি, বন্ধু সংখ্যা চার হাজার তিনশ। এখনো প্রচুর রিকোয়েষ্ট পাচ্ছি, কিন্তু এক্সেপ্ট করতে পারছি না। ফেইজবুক বলছে, আমি নাকি অচেনা মানুষকে রিকোয়েষ্ট পাঠিয়েছি। আসলে আমিই অচেনা অনেক মানুষের কাছ থেকে রিকোয়েষ্ট পাচ্ছি তো পাচ্ছিই। এক্সেপ্ট করতে পারছি না।

আমার ইনবক্স অনেক রাত পর্যন্ত টুংটাং করছিলো। অনেকেই অডিও এবং ভিডিও কল করছিলেন। আমার ঠান্ডা লেগে গলা বসে যাওয়ায় কারো কল ধরিনি। সবার ম্যাসেজের উত্তরও দিতে পারিনি। উত্তর না পেয়ে অনেকে খারাপ খারাপ প্রশ্ন করেছেন, অনেক কুপ্রস্তাব দিয়েছেন, অনেক খারাপ খারাপ ছবি এবং ভিডিও ক্লিপ পাঠিয়েছেন। এটা আমার জন্যে আশ্চর্য এক অভিজ্ঞতা। আমার কোন পুরুষ বন্ধুদের এরকম কোন অভিজ্ঞতা হয়েছে বলে শুনিনি। এইরকম অভিজ্ঞতা হবে জানলে নিঃসন্দেহে আমার অনেক ছেলে বন্ধু মেয়ে হয়ে যেতে চাইবে।

অনেকেই আমার ধর্ম সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। আমি একটি পদার্থ এবং আমার জীবন আছে। কাজেই প্রত্যেকটি জীবিত এবং পদারথের মত আমারও কিছু ধর্ম আছে। কিন্তু সেটা মানুষের কাছে ধর্ম নামে পরিচিত খ্রিষ্টান, হিন্দু, ইসলাম, বৌদ্ধ বা নাস্তিক্য জাতীয় কোন ধর্ম না। আমার কাছে আমার ঈশ্বর আকার আক্রিতিহীন একটি শক্তিশালী শক্তির উৎস যা মহাবিশ্বের প্রত্যেকটি বস্তুকনা এবং শক্তিকে একসাথে ধরে রেখেছে এর অকল্পনীয় ভালোবাসার শক্তি দিয়ে। এটি প্রত্যেকটি জীবিত এবং প্রানহীন বস্তুকনাকে সমানভাবে ভালোবাসে। মানুষ, প্রানী বা জীবের মৃত্যুর পর যে ধরনের কাল্পনিক স্বর্গ - নরকের কল্পনা করে মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ভালো কাজ করতে এবং খারাপ কাজ করতে নিষেধ করা হয়, সেটা অত্যন্ত আজগুবী একটা চিন্তা ছাড়া কিছুই না। আমি আসলে ঘৃণা করি সেই সব ধার্মিক মানুষদেরকে যারা মনে করে, অন্য সব ধর্মের মানুষরা বোকা, বিভ্রান্ত, এবং তাদেরকে সঠিক পথে আনার জন্যে উপদেশ বা পরামর্শ দেয়া দরকার, এবং তাতে কাজ না হলে, তাদের ধ্বংস হওয়া দরকার। তারা তাদের ধরমাবলম্বীদের রক্ষার জন্যে তাদের কাল্পনিক স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা করে, কিন্তু তারা জানেনা, তারা এই ধরনের প্রার্থনা করে নিজেদেরকে আরো বেশী মূর্খ, অসামাজিক, মানসিকভাবে অসুস্থ এবং মানুষ নামের অযোগ্য হিসাবে প্রমান করছে, অনবরত।

অনেকেই আমার পরিবার পরিজন, দেশে যাই কিনা, রাতে ভাত খেয়েছি কিনা, বয়ফ্রেন্ড আছে কিনা, ইত্যাদি নানান প্রশ্ন করে আমার ম্যাসেঞ্জার হ্যাং করে ফেলেছেন। কাজেই, আমার পক্ষে ম্যাসেঞ্জার চালু অবস্থায় ফেইজবুকে ঢোকা এবং কোন পোষ্ট লেখাও অসম্ভব একটা বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তার পরও, এই পোষ্ট টা দিচ্ছি, যেন এটা পড়ে আপনাদের মা, বোন, স্ত্রী, কন্যা এবং নারী আত্মীয় স্বজন এবং বন্ধু-বান্ধবীদের কথা ভেবে আরেকটু সুস্থ মানুষের মত আচরন করেন, এই আশায়।

আর যদি স্বাভাবিক মানুষের মত আচরন করতে না পারেন, তার চিকিৎসাও আমার জানা আছে। দয়া করে আমাকে সাধারন অবলা নারী মনে করবেন না। আমি ভালোর কাছে খুবই ভালো, আর খারাপ মানুষের কাছে সাক্ষ্যাত দুঃস্বপ্ন। বাকি জীবন যেন ভুলতে না পারেন, এরকম শিক্ষা দিতে আমাকে বাধ্য করবেন না। আপনারা হয়তো জানেন না, মেয়েরা প্রয়োজনে কতটা নিষ্ঠুর হতে পারে।

শুভ সকাল। ভালো মানুষরা ভালো থাকবেন, আর খারাপ মানুষরা ভালো হতে পারলে ভালো, না পারলে খুব খারাপ থাকবেন। সবাইকে শুভ্র শুভেচ্ছা।

Courtesy : শুভ্রা মাইশা অবন্তিকা

আমার কন্যার বয়স ১৪। তার ক্লাসমেটদের অনেকের নাকি ফেইজবুক একাউন্ট আছে। বান্ধবীদের অনেকের খোঁচাখুঁচির পরও সে তার কোন একাউন্ট খুলতে চায় না। খুললে কি হতে পারে, ভেবে, এবং জেনে আমি আতংকিত বোধ করছি। আমার নারী বন্ধুদের অভিজ্ঞতা হয়তো এতোটা খারাপ না।

 

 

 

(এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। বাংলাদেশ নিউজ আওয়ার-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে।)

ট্যাগ: Banglanewspaper মানুষ বিখ্যাত বাংলাদেশী