banglanewspaper

চট্টগ্রাম আদালত ভবন থেকে ফরিদা ইয়াসমিন সুমি (৩৫) নামে মিয়ানমারের এক নারী গুপ্তচরকে আটক করেছে পুলিশ। ডিবির সোর্স পরিচয়ে ওই নারী দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামে গুপ্তচরের কাজে লিপ্ত।

মঙ্গলবার বিকেলে নগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সোর্স পরিচয়ে প্রতারণার সন্দেহে সাদা পোশাক পরা ওই নারীকে পুলিশের হাতে তুলে দেয় চট্টগ্রাম আদালতের আইনজীবীরা। কিন্তু রাতে জিজ্ঞাসাবাদেই বেরিয়ে আসে আসল তথ্য।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার মো. কামরুজ্জামান বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে ওই নারী প্রতারণার কথা স্বীকার করলেও অনেক সত্য লুকিয়ে যাচ্ছেন। তার সাথে কথা বলার পর মনে হয়েছে সে এদেশের নাগরিক নয়।

সে মিয়ানমারের নাগরিক। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষাও সে রপ্ত করেছে। তার চলাফেরা, জীবন যাত্রা, আচার-আচরণ রহস্যজনক। তিনি বলেন, ধারণা করা হচ্ছে প্রতারক সুমি মিয়ানমারের গুপ্তচর। ডিবির সোর্স হিসেবে ভিজিটিং কার্ড বানিয়ে দাপটের সাথে চট্টগ্রামে ঘোরাফেরা করে সে গুপ্তচরের কাজে লিপ্ত রয়েছে। তার নাম-পরিচয়ও আসল নয়। নাম পরিচয় পাল্টিয়ে সে অবস্থান করছে। 

নগরীর এমন কোন থানা নেই যেখানে সুমি যায়নি। ভুয়া কার্ড ব্যবহার করে আদালতে সাধারণ বিচার প্রার্থীদের বিভ্রান্ত করেও সুমি টাকা পয়সা হাতিয়ে নিত। মঙ্গলবার বিকেলেও প্রতারণার সময় আইনজীবীরা তাকে আটক করে কোতোয়ালী থানায় সোপর্দ করে। তার ব্যাপারে গভীর ভাবে তদন্ত হওয়া দরকার।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন জানান, আজ দুপুরে আদালত এলাকায় আসামিদের অভিভাবকদের কাছ থেকে ভয়ভীতি দেখিয়ে এবং হাজতখানায় সুযোগ সুবিধার কথা বলে টাকা আদায় এবং প্রকাশ্যে ধূমপানকালে নিষেধ করায় একজন নারী আইনজীবীর সাথে অসাধাচরণ করায় আইনজীবী সমিতির নেতারা ফরিদা ইয়াসমিন সুমি নামে এ নারীকে পুলিশে দিয়েছে। তার বিরুদ্ধে নগর গোয়েন্দা পুলিশ মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

এক প্রশ্নের জবাবে ওসি জসিম জানান, এ নারী জন্ম সূত্রে বাংলাদেশী না ভিনদেশি তা তদন্ত করে দেখা হবে।

ট্যাগ: Banglanewspaper চট্টগ্রাম মিয়ানমার গুপ্তচর আটক