banglanewspaper

শীতে কাঁপছে সারাদেশ। অব্যাহত শৈত্যপ্রবাহের কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। শীতের তীব্রতা বাড়ার পাশাপাশি ঘন কুয়াশায় ঢাকা পড়েছে দেশের বেশিরভাগ অঞ্চল। এতে যান চলাচলও ব্যাহত হচ্ছে। হিমেল হওয়ায় হাড় কাঁপিয়ে দিয়ে যাচ্ছে। তবে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, শুক্রবার আগের দিনের চেয়ে তাপমাত্রা একটু বেড়েছে। কিন্তু শীতের তীব্রতা কমেনি এতটুকুও।

দেশের ইতিহাসে সর্বনিম্ন তাপমাত্রার নতুন রেকর্ড স্থাপিত হয়েছে। আজ সোমবার নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর ও ডিমলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

এ নিয়ে ঠান্ডায় কুড়িগ্রামে মোট ৬ জনের মৃত্যু হলো।

এরমধ্যে রাজারহাট উপজেলায় মারা গেছেন ৩ জন। মৃতদের মধ্যে গত শুক্রবার সকালে নয়ন মনি ও বৃহস্পতিবার মীম সদর হাসপাতালে মারা যান। বাকি ৩ জনকে রাত ১০টা থেকে সাড়ে ১২টার মধ্যে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় বলে জানিয়েছেন কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. জাহাঙ্গির আলম।

এদিকে জানানো হয়েছে, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, নেত্রকোনা, শ্রীমঙ্গল ও বরিশাল অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগসমূহের ওপর দিয়ে হাল্কা থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে রাত ও দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। কর্মকর্তারা জানান, বর্তমানে মাঝারি মাত্রার শৈত্যপ্রবাহ বইলেও এই মাসে আরও একাধিক শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। যা তীব্র আকার ধারণ করতে পারে।

আবহাওয়া অফিসের রেকর্ড অনুযায়ী গতবছর শীত মৌসুমে দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৫ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে, সোমবারও তাপমাত্রা কম থাকতে পারে। তবে ৯ অথবা ১০ জানুয়ারি থেকে এই অবস্থার উন্নতি হতে পারে।

ট্যাগ: Banglanewspaper শীত শৈত্যপ্রবাহ আবহাওয়া