banglanewspaper

দ্বিতীয় দফা শৈত্যপ্রবাহে কুড়িগ্রামে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এক সপ্তাহে জেলায় বৃদ্ধ, শিশুসহ ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ১ জানুয়ারি থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত এই হাসপাতালে শীতজনিত বিভিন্ন রোগে ভর্তি হয়ে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন, সাবিহা (৪ দিন), আমেনা (৬৫), জাহানারা (৩০), খাদিজা (১ দিন), মিম (দেড় বছর), এমরাত জাহান (১৫ দিন), নয়নমনি (১ দিন), জিতিয়া (৬০ দিন), মিরাজ (৫ দিন), মাজেদা (১ দিন) ও শিউলী। সোমবার পর্যন্ত ১৮০ জন রোগী ভর্তি হয়েছে। শীতের কারণে শিশু রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আনোয়ারুল হক প্রামাণিক জানান, গত এক সপ্তাহে হাসপাতালে ১১ জন রোগী মারা গেছে। এদের মধ্যে ২ জন বয়স্ক তাদের হার্টের অসুখ ও শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা ছিল। বাকিরা শিশু। লোবাকোয়েট, নিউমেনিয়া ও জন্মের সময় সমস্যার কারণে মারা গেছে তারা।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় জেলায় কর্মরত স্বাস্থ্য বিভাগের সব চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে। 

সিভিল সার্জন লোকমান হাকীম জানান, তীব্র শীতের কারণে হাইপার টেনশন, শ্বাসকষ্ট, ডায়রিয়া, নিউমোনিয়াসহ বিভিন্ন রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সব ধরনের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। এ ছাড়া ৮৫টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে।
জেলা প্রশাসক এ বি এম আজাদ জানান, জরুরি ভিত্তিতে ১০ হাজার কম্বল চেয়ে ঢাকায় ফ্যাক্স বার্তা পাঠানো হয়েছে। ইতিমধ্যে ১০ হাজার কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।

ট্যাগ: Banglanewspaper কুড়িগ্রাম শীত মৃত্যু