banglanewspaper

ডেস্ক রিপোর্ট : দেশজুড়ে প্রচণ্ড শীতে কাঁপছে চারপাশ। এই শীতে ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করতে ভয় পান অনেকে। তাদের জন্য গরম পানিই ভরসা। তবে এই ঠান্ডায় গরম পানিতে গোসল শুধু আরামদায়কই নয়, এর রয়েছে বেশ কিছু উপকারিতা! চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১. গরম পানি দিয়ে গোসল করলে শরীরের তপমাত্রা বাড়ে। পেশিগুলোও আরাম অনুভব করে। শারীরিক ও মানসিক শান্তির কারণে তাড়াতাড়ি ঘুম চলে আসে। ফলে যারা অনিদ্রায় ভোগেন তাদের গরম পানি গোসল করা উচিত।

২. গরম পানিতে গোসল করলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন ভালো হয়। যাদের মাথাব্যথা আছে এর ফলে তাদের এ যন্ত্রনার উপশম হয়।

৩. সর্দি, কাশি, গলা ব্যথা ইত্যাদি থাকলেও গরম পানিতে গোসল করা উচিত। নিশ্বাসে সমস্যা হলেও গরম পানিতে গোসল উপকারে আসে।

৪. ডায়াবেটিস রোগীতে ক্ষেত্রে গরম পানিতে গোসল রক্ত থেকে গ্লুকোজের পরিমাণ কমায়। এর ফলে ওজন কমে।

৫. বাতের ব্যথা থেকে রেহাই পেতেও গরম পানি দিয়ে গোসল করতে পারেন।

৬. উচ্চ-রক্তচাপের সমস্যা থাকলেও গরম পানি দিয়ে গোসল উপকারী। এর ফলে স্ট্রেসমুক্ত হওয়া যায়। শরীর ফিট থাকে।

৭. ত্বক সুস্থ রাখতেও গরম পানি দিয়ে গোসল করা উচিত। এর ফলে ত্বক থেকে মরা কোষ বেরিয়ে যায়।

৮. নিয়মিত গরম পানি দিয়ে গোসল করলে মস্তিষ্ক শান্ত থাকে। এটি বুদ্ধি বাড়াতেও সাহায্য করে।

গরম পানিতে গোসলের রয়েছে অপকারিতা-

গরম পানিতে গোসল কার্ডিওভাস্কুলার সিস্টেমে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। যাদের হাইপারটেনশনসহ হৃদপিণ্ডজনিত সমস্যা রয়েছে, তাদের জন্য গরম পানিতে গোসল ভাল নয়।

গরম পানিতে গোসল ত্বকের ছিদ্র খুলে দিলেও সহজে ময়লা জমে। এর কারণে ব্রনসহ নানান সমস্যা তৈরি হয়। গরম পানি চুলের জন্য ক্ষতিকর। চুল দুর্বল হয়ে সহজে ভেঙ্গে যায়।

গরম পানি বিষণ্নতার জন্যও দায়ি। গরম পানি শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে। যা শুধু এসিডিটির সমস্যাই তৈরি করে না, মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে।

শীতের সময় চামড়া খারাপ হওয়ার বড় কারণ হচ্ছে গরম পানি। গরম পানি দিয়ে গোসল করলে শরীরের প্রাকৃতিক যে তেল আছে সেটি ধুয়ে যায়। প্রোটিনগুলোও চলে যায়। তাই গোসলের আগে ও পরে তেল ও ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

ট্যাগ: Banglanewspaper শীত উপকারিতা