banglanewspaper

জিললুর রহমান, আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা হাসপাতালের একমাত্র এক্সরে মেশিনটি দীর্ঘ ৭ বছর চালু না করে এক্সরে কার্যক্রম সম্পূর্নরুপে বন্ধ থাকায় শতশত দরিদ্র রোগীদের রোগ নির্নয়ে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

ফলে রোগীদের অধিক টাকায় অন্যত্র এক্সরে করতে বাধ্য হচ্ছে।

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা সদরের ৩১ শয্যা বিশিষ্ঠ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি বিগত ২০১৩ সালে ৫০ শয্যায় হাপাতালে উন্নীত করার পর এই হাসপাতালে অপারেশন করার যন্ত্রপাতিসহ বিভিন্ন রোগ নির্নয়, যাবতীয় সরঞ্জাম সরবরাহ করা হয়।

এক্সরে মেশিন নতুন ভাবে স্থাপনের জন্য ২০১৬ সালের জুন মাসে শুধু লিড এ্যাপ্রোন, লিড লেটার, ডার্করুম সেফলাইট, এক্সরে ড্রাইং ক্যাবিনেটসহ মাত্র ১১ প্রকার যন্ত্রাংশ অত্র হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। কিন্তু মুল এক্সরে মেশিন না আসায় কিংবা অকেজো মেশিনটি মেরামত না করায় ৭বছর যাবত এক্সরে কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

প্রতিদিন হাসপাতালে এক্সরে করতে আশা অনেক রোগী অধিক টাকায় বিভিন্ন ক্লিনিকে বাধ্য হয়ে এক্সরে করতে হচ্ছে। ফলে বঞ্চিত হচ্ছেন এক্সরে করতে আশা শতশত দরিদ্র রোগী।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কর্মকর্তা ডাঃ শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, এক্সরে মেশিনটি মেরামত যোগ্য নয় বলে প্রকৌশলী জানানোর পর তা পরিবর্তন করার জন্য সংশ্লিষ্ঠ দপ্তরে কয়েক বার পত্র দেয়া হলেও অদ্যাবধি নতুন মেশিন পাওয়া যায়নি।

ট্যাগ: Banglanewspaper এক্সরে মেশিন আদমদীঘি হাসপাতাল