banglanewspaper

হুমায়ুন কবীর, কুষ্টিয়া: প্রায় ৮০ বছরের এক অজ্ঞাত বৃদ্ধা পড়ে আছে কুষ্টিয়া জেনারেলে। তীব্র শীতে বেশ জড়সর হয়ে পড়ে আছে হাসপাতালের সিঁড়ির নিচে। হাসপাতালের সামনেই সমাজ সেবা অফিস থাকলেও সমাজসেবা অফিসের কেউ খোঁজ নেয়নি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, খাবার চাইবে এমন উচ্চ স্বরে কথা বলার শক্তি নেই তার। তবে কেউ তার সামনে খাবার রেখে গেলে খুব কষ্টে নিজ হাতেই দু-এক বার খাবার নিচ্ছেন মুখে। পৃথিবীতে অনেক অসহায় মানুষের মাঝে এই বৃদ্ধাও একজন, নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাস হবে না! 

সময় তখন দুপুর গড়িয়ে গেছে, হাসপাতালের করিডোর দিয়ে ওয়ার্ডে প্রবেশ করতে গিয়ে হঠাৎ চোখে পড়ে সিঁড়ির নিচে ছেড়া এক কম্বলের মধ্য থেকে হাত উঁচিয়ে কি যেন বলতে চাইছেন কেউ একজন। 

একটু কাছে যেতেই দেখা গেল ৮০ বছরের এক  বৃদ্ধা তীব্র শীতের মধ্যে শুয়ে আছে। ঠিকমত কথা বলতে পারছে না, তবুও কি যেন বলতে চায়। কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করতেই অস্পষ্ট ভাবে বলল পানি।

কাছেই কে যেন এক বোতল পানি রেখে গেছেন। বোতলের কর্কের মধ্যে পানি দিয়ে দু’বার মুখে দিতেই আবার ইশারা দিল আর লাগবে না। 

কে এই বৃদ্ধা? কারাই বা রেখে গেছেন তাকে? কখনো তার চোখ থেকে নিরবে অশ্রু ঝরছে। তার এই অশ্রুই যেন অনেক ভাষা বলে দিচ্ছেন। যে ভাষা গুলো হয়তো এখন খুব কষ্টের! 

ওয়ার্ডের কর্তব্যরত এক নার্স জানালেন, গতকাল বোরকা পরিহিত এক মহিলা এসে হাসপাতালে ভর্তি না করে ওই বৃদ্ধাকে রেখে চলে যায়। পরে আর সে ফিরে আসেনি। এরপর থেকে তারাই খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। পাশাপাশি রোগীর সাথে আসা স্বজনরাও বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করছেন। 

হাসপাতালে রোগীর কয়েকজন স্বজনের সাথে আলাপকালে তারা জানায়, গত দু’দিন ধরে ওই বৃদ্ধা পড়ে আছে। এই অবস্থা দেখে অনেকেই পানি, খাবার কিনে দিচ্ছেন। সেগুলো খেয়েই কোন রকম চলে যাচ্ছে।

অনেকেই মনে করছেন, ভালো চিকিৎসা সেবা পেলে স্বাভাবিক এবং সুস্থ হয়ে উঠবেন এই বৃদ্ধা। এই মানুষটি কি একটু সহানুভূতি পেতে পারে না? এই ব্যাপারে সহৃদয় ব্যক্তিদের এগিয়ে আসার অনুরোধ করেছেন হাসপাতালে আগত রোগীরা।

ট্যাগ: Banglanewspaper কুষ্টিয়া হাসপাতাল