banglanewspaper

জাবি প্রতিনিধি: ২০১২ সালের ৮ জানুয়ারি ছাত্রলীগের কোন্দলে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের স্নাতক শেষ বর্ষের ছাত্র জুবায়ের আহমেদ স্মরণে দিনব্যাপি আলোকচিত্র প্রদর্শনী কর্মসূচী পাল করেছে ছাত্রইউনিয়ন জাবি সংসদ।

মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদ এবং কলা ও মানবিকী (নতুন) অনুষদে এ আলোকচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে প্রস্তাবিত 'জুবায়ের স্মরণী'তে তার প্রতিকৃতি অঙ্কন করা হয়।

দিনের অন্যন্য কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে হত্যাকান্ডের উপর নির্মিত ডকুমেন্টারি প্রদর্শন। যেটি সন্ধ্যা সাতটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় প্রদর্শিত হবে।

কর্মসূচীতে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সাধারণ সম্পাদক নজির আমিন চৌধুরী জয় বলেন, ‘জুবায়ের হত্যার আসামিরা প্রত্যেকেই ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। এই কর্মসূচির মাধ্যমে আমরা জোবয়েরকে স্মরণ ও দীর্ঘ আন্দোলনের ফলে যাদের বিচার হয়েছে তাদের বিচারের রায় কার্যকর করার দাবি জানাচ্ছি। পাশাপশি যাবজ্জীবন ও ফাঁসির দণ্ডাদেশ পাওয়া ৫ পলাতক আসামিকে আটক করে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি।’

প্রসঙ্গত, জোবায়ের হত্যা মামলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ ৮ এপ্রিল, ২০১২ তারিখে ১৩ জন ছাত্রের বিরুদ্ধে ঢাকার হাকিম আদালতে একটি অভিযোগপত্র জমা দেন। এই মামলার রায়ে ৫ জনকে ফাঁসি ও ৬ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং বাকি দু'জনের সংশ্লিষ্টতা না থাকায় খালাস দেওয়া হয়।

ফাঁসির দণ্ডাদেশ পাওয়া আসামিরা হলেন, প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগের আশিকুল ইসলাম আশিক, খান মোহাম্মদ রইছ ও জাহিদ হাসান, দর্শন বিভাগের রাশেদুল ইসলাম রাজু এবং সরকার ও রাজনীতি বিভাগের মাহবুব আকরাম। এদের মধ্যে রাশেদুল ইসলাম রাজু ছাড়া বাকি চারজনই পলাতক।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ পাওয়া আসামিরা হলেন, পরিসংখ্যান বিভাগের ছাত্র শফিউল আলম সেতু ও অভিনন্দন কুণ্ডু অভি, দর্শন বিভাগের কামরুজ্জামান সোহাগ ও ইশতিয়াক মেহবুব অরূপ, ইতিহাস বিভাগের মাজহারুল ইসলাম এবং অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র নাজমুস সাকিব তপু। যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে অরূপ পলাতক এবং বাকিরা কারাগারে রয়েছে।

ট্যাগ: Banglanewspaper জাবি জাহাঙ্গীরনগর আলোকচিত্র