banglanewspaper

রাজধানীর শাহবাগ থানা এলাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ’) এর চিকিৎসক ডাঃ মো. রিয়াদ সিদ্দিকীর নামে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ করেছেন এক তরুনী। আর এই ঘটনায় ওই তরুনীর বাবা কামাল হোসেন বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন।

শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রিপন কুমার বিশ্বাস এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। তিনি আজ সন্ধ্যায় বিষয়টি জানিয়েছেন।

তিনি জানান, ডাঃ মো. রিয়াদ সিদ্দিকী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়( বিএসএমএমইউ’) এর যৌন ও চর্ম রোগ বিশেষজ্ঞ। তার বিরুদ্ধে গতকাল রাতে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। মামলা নম্বর- ২১।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, ওই রুণীর গ্রামের বাড়ী ভোলা জেলায়। সেখানে ডা. রিয়াদ সিদ্দিকীর একটি ব্যক্তিগত চেম্বার রয়েছে। ২০১৭ সালের ৬ অক্টোবর ওই তরুণী চিকিৎসার জন্য তার চেম্বারে চেম্বারে যায়। এ সময় ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী তাকে নানাভাবে কুপ্রস্তাব দেয়। একই সাথে শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর জায়গায় হাত দেয়। এ সময় ওই তরুনী বাধা দিলে ডাক্তার তাকে ভয় দেখায়।

এর পর আবারো ওই তরুনী ডা. রিয়াদ সিদ্দিকীর কাছে চিকিৎসার জন্য গেলে সেখানেই তাকে ধর্ষণ করে। আর ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে রাখা হয়েছে বলে ওই তরুনী হুমকি দেয় ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী। এই ঘটনা কাউকে জানালে ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়া হবে বলেও হুমকি দেন তিনি।

সর্বশেষ ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী ওই তরুনীর পরিবারকে জানায় যে তাদের মেয়ের বড় একটি অসুখ হয়েছে এ জন্য ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় তাকে আনতে বলে।

ডা. রিয়াদ সিদ্দিকীর কথা মত ওই তরুনীর বাবা কামাল হোসেন গত ৩১ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে মেয়েকে নিয়ে আসেন। বাবাকে অপেক্ষা করতে বলে ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী ওই তরুনীকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বি-ব্লকের চতুর্থ তলার একটি নির্জন রুমে যায়। সেখানে আবারো ওই তরুনীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

এই বিষয়ে শাহবাগ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাফর আলী বিশ্বাস আজ সন্ধ্যায় বলেন, মামলা দায়ের করার পরে আজ ওই তরুনীকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। আদালতে ওই তরুনী জবানবন্দী দিয়েছেন। আর ঘটনার পর থেকেই ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী পলাতক রয়েছেন।

ট্যাগ: Banglanewspaper বিএসএমএমইউ চিকিৎসক রোগীকে ধর্ষণ