banglanewspaper

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : অবশেষে হাসপাতালে ভর্তি দেখিয়ে ওয়ার্ডের এক কোণে জায়গা হলো অজ্ঞাত সেই বৃদ্ধার। মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও)'র সাথে সাক্ষাৎ করেন গণমাধ্যমকর্মী অর্পণ মাহমুদ। 

এসময় অজ্ঞাত বৃদ্ধা রোগীর ব্যাপারে কথা বলার পর ভর্তি করে  সংশ্লিষ্টদের ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন (আরএমও)। সাথে তার চিকিৎসার ব্যাপারে খোঁজখবর নেন।

তবে এর আগে সকালের দিকে ওয়ার্ডে খোঁজ নিতে গেলে রোগী ভর্তির কোন ফাইল না থাকায় চিকিৎসকরা ওই বৃদ্ধাকে দেখছেন না বলে জানান কর্তব্যরত কয়েকজন নার্স। পরে সাংবাদিকরা মঙ্গলবার দুপুরে ওয়ার্ডে গিয়ে খোঁজখবর করলে নার্সরা তখন বলে তার চিকিৎসা ব্যবস্থা শুরু হয়েছে।

এসময় সাংবাদিক অর্পণ মাহমুদ তার কাছে গেলে নাম পরিচয় জানতে চাইলে সে কিছুই বলতে পারেনি। শুধূ বলছে বাড়ী গোপালপুর। ব্যাস, আর একটু ইশারায় খাবার খেতে চাই। তাৎক্ষনিক খাবারের ব্যবস্থা করেন সেই সংবাদকর্মী।

এদিকে, সেই অজ্ঞাত বৃদ্ধার কোন স্বজন না থাকায় সাংবাদিকসহ সচেতন মহলের অনেকেই তার খোঁজ নিয়েছেন। তবে তার চিকিৎসা শেষে তকে পুনর্বাসন করা যায় কিনা তার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানিয়েছেন।

এই বৃদ্ধার মানবিক সংবাদটি ছবিসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন অনলাইন সংবাদমাধ্যমে প্রচার হওয়ার পর অনেকেই বৃদ্ধার ব্যাপারে বিভিন্ন ভাবে চিকিৎসা সহায়তার ব্যাপারেও খোঁজখবর নেন। সাথে সাথে হাসপাতাল সমাজসেবা অফিসার সুশান্ত কুমার পাল একটি কম্বল তুলে দেন সেই বৃদ্ধার গায়ে। দেশ বিদেশের অনেকেই বৃদ্ধার চিকিৎসার বিষয়ে সাহায্যে এগিয়ে আসার আশ্বাস দিয়েছেন। 

জানা যায়, গত দুদিন ধরে ওই বৃদ্ধা হাসপাতালের করিডোরে পড়ে আছে। এই অবস্থা দেখে অনেকেই পানি, খাবার কিনে দিচ্ছেন। তাই খেয়েই কোন রকম চলে যাচ্ছে। কিন্ত হাসপাতালে কেউ তাকে ভর্তি করেনি বলে কোন চিকিৎসা পায়নি সেই বৃদ্ধাটি। পরবর্তীতে বিসয়টি সাংবাদিক অর্পন মাহমুদের নজরে এলে তার চিকিৎসার জন্য সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলেন এবং হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করেন।

ভালো চিকিৎসাসেবা পেলে স্বাভাবিক এবং সুস্থ হয়ে উঠবেন এই বৃদ্ধাটি এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করেন সংশ্লিষ্টরা।

ট্যাগ: Banglanewspaper কুষ্টিয়া হাসপাতাল