banglanewspaper

এবিএম আতিকুর রহমান বাশার,কুমিল্লা: মৃত্যুফাঁদ খ্যাত কুমিল্লা- সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের দেবীদ্বার উপজেলার চরবাকর এলাকায় মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টায় এক মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় ১জন নিহত এবং ১১জন আহত হছেন। 

আহত যাত্রীরা জানান, একটি মাইক্রোবাস (নং- চট্রো মেট্রো- চ-১১-৩৯৭৪) যোগে চালক  ও হেলপার সহ ১২ যাত্রী নিয়ে কক্সবাজার থেকে  ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা ফেরার পথে কুমিল্লা- সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের দেবীদ্বার উপজেলার চরবাকর বাসষ্ট্যাশনের অদূরে সড়কের ভাঙ্গাচুড়া অংশে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে একটি গাছের গাছে ধাক্কা লেগে ওই দূর্ঘটনা ঘটে। দূর্ঘটনায় সকল যাত্রীই আহত হন। ঘটনার পরপরই দেবীদ্বার থানার ওসি’র নেতৃত্বে রাত্রীকালীন টহলরত পুলিশের একটি দল যাওয়ার পথে আমাদের উদ্ধার করে দেবীদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসাসেবা প্রদান করে মারাত্মক আহত ৭জনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওখানে বুধবার সকালে জুবায়ের হাসান চৌধূরী (১৮) নামে এক আহত যাত্রী মারা যান।

নিহত জুবায়ের হাসান চৌধূরী ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার বিষ্ণপুর গ্রামের মোঃ তছলিম চৌধূরীর পুত্র। অন্যান্য মারাত্মক আহত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার বিষ্ণপুর গ্রামের পিতা অজ্ঞাত গোলাম কিবরিয়া(২৬), গোলাম নবীর পুত্র মেহেদী হাসান(২৫), মোখলেসুর রহমানের পুত্র আল-আমিন(২০), কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের জামসেদ’র পুত্র মামুন(২০), ভিংলাবাড়ী গ্রামের ছিদ্দিকুর রহমান’র পুত্র মিজানুর রহমান(৫০)ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মীরপুর গ্রামের মানিক মিয়ার পুত্র জিলানী(২০) সহ ৬জন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

হাইওয়ে পুলিশের মীরপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) একেএম মনিরুজ্জামান চৌধূরীর বলেন, সম্ভবত: লং জার্নির কারনে চালকের তন্দ্রা আসায় ভগ্ন সড়কে গাড়ির নিয়ন্ত্রন রাখতে পারেনি, তাই গাছের সাথে ধাক্কা লেগে ওই দূর্ঘটনা ঘটে। মারাত্মক আহতদের মধ্যে জুবায়ের হাসান চৌধূরী (১৮) নামে এক যাত্রী নিহত হওয়ার সংবাদ পেয়েছি। বাকী ৬জনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন, তবে তারা আশংকামুক্ত। মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

দেবীদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, ঘটনার পরপরই নৈশকালীন প্রহরায় ওই সড়ক দিয়ে দেবীদ্বার আসার পথে দূর্ঘটনার বিষয়টি নজরে আসে। গভীর রাতে শীত এবং কুয়াশার কারনে সড়কে লোকবল ছিলনা। আমার গাড়ির পেছনেই আরো একটি টহলগাড়ি ঘটনাস্থল উপস্থিত হয়। আমি তাৎক্ষনিক পৌরসভার টহলপুলিশকে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসক এবং এ্যাস্ব্যুলেন্স রেডি রাখার কথা বলে মুরাদনগর ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেই। আহতদের কয়েকজনকে উদ্ধার পূর্বক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠিয়ে তাদের স্বজনদের ফোনে জানিয়ে দেই।

গাছের সাথে দুমড়ে যাওয়া মাইক্রোবাসের সামনের সিটের এক যাত্রী আটকে গেলে তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করে ব্যর্থ হই, পরে একটি ট্রাক থামিয়ে  রশিবেঁধে মাইক্রোবাসটি তুলে এনে ১০/১২জন পুলিশ মিলে দুমড়ো পড়া গাড়ির অংশ ফাঁকা করে তাকে বের করে দ্রুত কুমেক হাসপাতালে পাঠাই। পরে হাইওয়ে পুলিশ এসে গাড়িটি ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে ফাড়িতে নিয়ে যায়। 
 

ট্যাগ: Banglanewspaper দেবীদ্বার সড়ক দূর্ঘটনা নিহত