banglanewspaper

উদ্বাস্তু আশ্রয়ের বিষয়ে নতুন নীতিমালা গ্রহণ করতে যাচ্ছে জার্মানি। এ বিষয়ে একটি খসড়া প্রস্তাবে বলা হয়েছে, দেশটি প্রতি বছর সর্বোচ্চ দুই লাখ উদ্বাস্তুকে আশ্রয় দেবে। আর এতে প্রাধান্য পাবে আশ্রয় পাওয়া উদ্বাস্তুদের পরিবারের সদস্যরা।

নতুন নীতিতে ইতোমধ্যে সম্মত হয়েছে চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মারকেলের কনজারভেটিভ পার্টি ও সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি। এটি পাস হলে বর্তমানে জার্মানিতে উদ্বাস্তু হিসেবে আছে এমন পরিবারগুলোর সদস্যরা আসতে পারবে মাসে সর্বোচ্চ এক হাজার। এ দিকে জার্মানিতে রাজনৈতিক সঙ্কট নিরসনে একটি জোট সরকার গঠন আলোচনায় অগ্রগতি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

উদ্বাস্তু নীতিসংক্রান্ত প্রস্তাবটিতে আরো বলা হয়েছে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের উদ্বাস্তুবিষয়ক স্বেচ্ছাসেবী চুক্তি মোতাবেক ইতালি ও গ্রিস থেকে জার্মানি যে পরিমাণ উদ্বাস্তু গ্রহণ করেছে তত পরিমাণ কমানো হবে সরাসরি উদ্বাস্তু গ্রহণ পরিকল্পনা থেকে। নতুন এই নীতিতে জার্মানিতে আসার আগে বিয়ে করেছেন এমন উদ্বাস্তুদের স্ত্রী-সন্ত্রানেরা, একক লোকদের মধ্যে যাদের অপরাধের সাথে সম্পৃক্ততা নেই এবং শিগগিরই যাদের দেশে ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই তারা বিবেচিত হবেন। এএফপির হাতে আসা ওই খসড়ার একটি কপিতে বলা হয়েছে, ‘নতুন উদ্বাস্তুদের সংখ্যা কিছুতেই প্রতি বছর ১ লাখ ৮০ হাজার থেকে ২ লাখ ২০ হাজার অতিক্রম করবে না’।

নতুন সরকার গঠনের ক্ষেত্রে জার্মানিতে অ্যাঞ্জেলা মারকেলের রক্ষণশীল ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ও বর্তমান সরকারে তাদের মিত্র সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মধ্যে আলোচনায় অগ্রগতি হয়েছে। টানা ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় আলোচনার পর উভয় দল অভিবাসন নীতিসহ বেশ কিছু বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছেছে।

গত সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে মারকেলের সিডিইউ ও তাদের বাভারিয়ার প্রাদেশিক মিত্র সিএসইউ মিলে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। এরপর বিভিন্ন দলের সাথে জোট সরকার গঠনের আলোচনা শুরু করেন মারকেল। জোট সরকার গঠন সম্ভব না হলে দেশটিতে নতুন নির্বাচন দিতে হবে।

ট্যাগ: Banglanewspaper জার্মানি অ্যাঞ্জেলা মারকেল