banglanewspaper

বিনোদন ডেস্ক : সম্প্রতি অপু বিশ্বাসকে ডিভোর্স লেটার পাঠিয়েছেন শাকিব খান। এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে সালিশি বৈঠকে ডাকা হয় শাকিব-অপুকে। গতকাল সোমবার ছিল সেই দিনক্ষণ।

এদিন সকাল ১০টায় সিটি করপোরেশনের অঞ্চল ৩-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হেমায়েত হোসেনের সঙ্গে তালাক নোটিশের বিপরীতে সমঝোতা বৈঠকে অপু বিশ্বাস উপস্থিত হলেও শাকিব খান কিংবা তার পক্ষ থেকে কেউ উপস্থিত ছিলেন না।

তবে সেখান থেকে বেরিয়ে অপু বিশ্বাস জানান, ‘চিঠিতে যে স্বাক্ষরটি দেয়া হয়েছে সেটা শাকিব খানের নয়। এছাড়া ডিভোর্সের জন্য যেসব কাগজপত্রাদি জমা দেয়া দরকার সেগুলোর অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাগজ শাকিব জমা দিতে পারেননি। তাই ডিভোর্সের আবেদনটি বাতিলও হতে পারে।’

 তিনি বলেন, রাগের মাথায় শাকিব আমাকে ডিভোর্সের চিঠি দিয়েছে। দেশে প্রচলিত ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইনে ডিভোর্সের বেশ কিছু নিয়ম কানুন রয়েছে। সেইসব নিয়মে এই আবেদন শুদ্ধ নয়।

চিত্রনায়িকা অপু বলেন, শাকিবের আইনজীবীকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র কেন জমা দেয়া হয়নি সেটি ফোনের মাধ্যমে জিজ্ঞেস করেছে সিটি কর্পোরেশন। তিনি কোনো সদুত্তর দেননি। যে আবেদনটি সঠিকই নয় তার ফলাফল নিয়ে আমি ভাবছি না। আমি সংসার করতে বরাবরই আগ্রহ প্রকাশ করেছি আজও করে এলাম।

ঢালিউডের এই শীর্ষ নায়িকা বলেন, আমার ছেলে আব্রামের জীবনটা অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে যাবে আমি-শাকিব আমরা আলাদা হলে। মা হিসেবে আমি এটা কখনোই চাই না। আমি শাকিবকে ভালোবেসে বিয়ে করেছিলাম, আজও সেই ভালোবাসা একচুল কমেনি। আরও দুটি শুনানি বাকি রয়েছে আমাদের।

আমার বিশ্বাস শাকিব তার ভুল বুঝতে পারবে এবং স্ত্রী-পুত্রের কাছে ফিরে আসবে। এতে আমাদের দুজনের ইমেজও বাঁচবে, আমাদের ছেলেও আর দশটা ছেলের মতো স্বাভাবিক জীবন পাবে। বিচ্ছেদ কোনো সমাধান নয়, হতে পারে না।

ট্যাগ: Banglanewspaper শাকিব অপু ডিভোর্স