banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিনিধি: সকাল ১০টা। শিক্ষার্থীদের পদচারণায় স্কুল থাকার কথা পরিপূর্ণ। কিন্তু প্রধান শিক্ষক ছাড়া অন্য কোন শিক্ষক নেই। সাথে শিক্ষার্থীর সংখ্যাও কম। উপায় না দেখে বেলা ১২টায় স্কুলে তালা ঝুলিয়ে চলে যান প্রধান শিক্ষক। 

উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পৃথক পরিদর্শনে গিয়ে এমন ঘটনা দেখে অবাক হয়ে যান। আজ বৃহস্পতিবার আকস্মিক পরিদর্শন শেষে শৈলকুপা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ওসমান গনি তার ফেসবুক পেজে ছবিসহ একটি পোস্ট দেন। পোস্টটি ফেসবুকে ব্যাপক ভাইরাল হয়। 

পোস্টে তিনি বলেন, ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার খুলনাবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকাল ১০টায় আকস্মিক পরিদর্শনের যান উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ রেজাউল করিম। এসময় তিনি দেখতে পান স্কুলের প্রধান শিক্ষক নুরুননাহার পারভীন উপস্থিত আছেন। বাকি অন্য তিন শিক্ষক মোঃ রেজাউর রহমান, মোঃ বদর উদ্দিন ও দীপ্তি রানী মন্ডল ব্যাক্তিগত কারণে আজ স্কুলে আসেননি। তাই স্কুলের শিক্ষার্থীরাও নিরুপায়।

পরে শিক্ষা অফিসার স্কুল ছেড়ে চলে গেলে প্রধান শিক্ষক নুরুননাহার পারভীনও বেলা ১২টায় স্কুলের ক্লাশ রুমে তালা দিয়ে বাড়ি চলে যান। কিন্তু বিধি বাম শৈলকুপা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ওসমান গনি আবারও পরিদর্শনে যান ওই স্কুলে। সাথে নেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ রেজাউল করিম এবং সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার দিলরুবা খাতুন ও মোহাম্মদ খায়রুল ইসলামকে। গিয়ে দেখেন স্কুলের প্রতিটি ক্লাশ রুমে তালা ঝুলছে। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানতে পারেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার স্কুল ত্যাগের পর পরই প্রধান শিক্ষক; শিক্ষার্থীদের ছুটি দিয়ে বাড়ি চলে গেছেন। 

ইউএনও বলেন, স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানতে পেরেছি স্কুলের শিক্ষকরা ঠিকমত স্কুলে আসেন না, স্কুলে ঠিকমত ক্লাসও হয়না। এ কারণে এলাকার কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ জীবন হুমকির মুখে। এতে এলাকার সাধারণ মানুষও ক্ষুদ্ধ। 

তবে এ ব্যাপারে স্কুলের সভাপতি ও স্কুলের শিক্ষকদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। 

ট্যাগ: Banglanewspaper স্কুল আছে শিক্ষক-শিক্ষার্থী নেই