banglanewspaper

ভারতের তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘তিস্তা নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। আমার ওপর আস্থা রাখুন। আপনাদের কিছু সমস্যা আছে, আমাদেরও কিছু সমস্যা আছে। এ বিষয়ে আমি হাসিনাদির সঙ্গে আলোচনা করব।’

শুক্রবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ইন্দো-বাংলা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (আইবিসিসিআই), ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই) ও ইন্ডিয়ান চেম্বার অব কমার্স, কলকাতা (আইসিসি) আয়োজিত ব্যবসায়ীদের সভা এবং বাংলাদেশ ও ভারতের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সীমান্ত সমস্যার সমাধানে ভারত সরকারের পার্লামেন্টে আসন্ন বিল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্ক নিয়ে ভুল বোঝানো হয়েছিল। অনেকেই অনেক কিছু প্লে করে। আমরা কিন্তু কিছু প্লে করতে চাই না। কারণ আমাদের হৃদয়ের ভাষা এক।’

কলকাতার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গোটা পশ্চিমবঙ্গ পরিবার আজ আনন্দিত। এপার বাংলা-ওপার বাংলা, দুই বাংলার মধ্যে যতই রাজনৈতিক ও ভৌগোলিক বাউন্ডারি থাকুক, মনের কোনো বাউন্ডারি নেই।’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘কালকে বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এই দিবসের দিকে আমরা সবাই তাকিয়ে থাকি। বাংলাদেশের যে ভাষা আন্দোলন, এই দেশের মানুষ এ দিবসকে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পেয়ে আলোকিত। সেই আলোয় আমরা আলোকিত, সুরভিত, বিকশিত।’ 

দুই দেশের সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া প্রসঙ্গে মমতা  বলেন, ‘কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে সম্পর্কের ভাগাভাগি আনা যায় না। বাংলাদেশকে আমরা ছাড়তে পারি না। তেমনি বাংলাদেশও আমাদের ছাড়তে পারে না। দুই দেশ (বাংলাদেশ-ভারত) যাতে ভালো থাকতে পারে, সেজন্য মনের দরজা খুলে দিতে হবে। এতে দুই দেশের বন্ধুত্ব আরো সুদৃঢ় হবে।’

অনুষ্ঠানে একটি কবিতাও আবৃত্তি করেন তিনি। দুই দেশের সংস্কৃতির মিলের বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের একই সংস্কৃতি। আমরা একই খাবার খাই, একই গান গাই। আমাদের একই রবীন্দ্রনাথ, একই নজরুল, একই লালন, একই ক্ষুদিরাম ও সূর্য সেন।’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা সফরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, জ্যেষ্ঠ রাজনীতিক, সংস্কৃতি ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন।

মতবিনিময় সভা শেষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন মমতা। বেলা ৩টার দিকে বঙ্গভবনে এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হবে। সন্ধ্যায় ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন শেষে রাতে ভারতীয় হাইকমিশনার আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী।

এ ছাড়া রাত ১২টায় একুশের প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন তিনি। 

  বৃহস্পতিবার রাতে তিন দিনের সফরে ঢাকায় আসেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ট্যাগ: