banglanewspaper

লঞ্চ এমভি মোস্তফার ডুবে যাওয়া যাত্রীদের লাশের উদ্ধারের জন্য  নদী পাড়ে বসে অপেক্ষার প্রহর গুনছেন স্বজনরা। স্বজনদের কান্নায় ভারী হয়ে উঠেছে পদ্মা পাড়ের উভয় তীর।
দৌলতদিয়া নৌরুট এবং পাটুরিয়া নৌঘাট উভয় ঘাটেই অপেক্ষা করছে লঞ্চে নিখোঁজ হওয়া যাত্রীদের স্বজনরা। স্বজনদের এখন একটাই চাওয়া অন্তত তারা যেন লাশটি পায়।
স্বজনদের লাশের অপেক্ষায় থাকা রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি থানার রাজু মিয়া বলেন, ‘আমার পরিবারের পাঁচজন সদস্য ঢাকা থেকে এই লঞ্চে বাড়ি ফিরছিল। তাদের মধ্যে এক জনকে জীবিত পাওয়া গেছে। বাকীদের এখনও পাওয়া যায়নি। আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি, জীবীত না থাকলেও অন্তত তাদের লাশ যেন পাই।’
এরই মধ্যে ১২ জনের লাশ উদ্ধার করেছে কর্তৃপক্ষ। এদের মধ্যে  ছয়জন পুরুষ, চার জন নারী এবং দুইটি শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
নৌপুলিশ ফাড়ির ডিআইজি মো. মনিরুজ্জামান ও পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি নুরুজ্জামান ঘটনাস্থলে আছেন। লাশ সনাক্তের জন্য পাটুরিয়াতে দুটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।
প্রসঙ্গত আজ রোববার বেলা ১২টার দিকে পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে আসা এমভি মোস্তফা নামে একটি লঞ্চ দুর্ঘটনায় পড়ে। পদ্মা নদীতে সার বাহী একটি কার্গোর সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে ডুবে যায় লঞ্চটি। এতে এই প্রাণহানি হয়েছে। তা ছাড়া লাশের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ট্যাগ: