banglanewspaper

ঘরের মাঝামাঝি সিঁধকাটা দেখে তারা বুঝতে পারল চুরি হয়েছে। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও চুরি হওয়া মালামাল পাওয়া যায়নি। তবে পাওয়া যায় চোরের রেখে যাওয়া মোবাইল ফোনটি। এতেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। চোরের পরিচয় পেয়ে পুলিশ ধরে ফেলে চোরকে। উদ্ধার করে চুরি হওয়া মালামাল।

ঘটনাটি ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার পূর্ব দপদপিয়া গ্রামে।

নলছিটি থানার পুলিশ জানায়, শুক্রবার দিবাগত রাতে পূর্ব দপদপিয়া গ্রামের সুমি বেগমের ঘরের সিঁধ কেটে ঢুকেন এক চোর। চোর ওই ঘর থেকে টাকা, স্বর্ণালংকার ও কয়েকটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। তবে ভুল করে নিজের মোবাইলটিই ঘরের ভেতরে রেখে যায়।

শনিবার সকালে ঘুম থেকে ওঠে সুমি বেগম দেখতে পান, তাঁর গলার চেইন নেই। পরে দেখতে পান, ঘরে থাকা টাকা ও অন্য স্বর্ণালংকারও নেই। অনেক খোঁজাখুঁজির পর পাওয়া যায় অন্য একটি মোবাইল ফোন। সন্দেহ হয়, এটিই চোরের রেখে যাওয়া মোবাইল ফোন। তিনি খবর দেন পুলিশে। নলছিটি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মহিউদ্দিন শেখ ঘটনাস্থলে গিয়ে মোবাইল ফোনটি নিয়ে তদন্ত শুরু করেন। খুঁজে পান সুমি বেগমের গ্রামেরই একটি ছেলের মোবাইল এটি। তার নাম রাসেল সিকদার (২৮)। তাকে আটকের পর বেরিয়ে আসে চুরির সব তথ্য।

এসআই মো. মহিউদ্দিন শেখ বলেন, চোর রাসেল সিকদারকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তার কাছ থেকে চুরি হওয়া মালামালও উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় সুমি বেগম বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। এসআই মহিউদ্দিন আরো জানান, চোর রাসেল সিকদার দাবি করেছে, সে এই প্রথম চুরি করেছে। এই কারণে ভুলে ওই বাড়িতে নিজের মোবাইল ফোন রেখে এসেছিল।

ট্যাগ: banglanewspaper চুরি