banglanewspaper

কাজী রফিকুল ইসলাম: শখের পোষা পাখিটিকে ঘিরে কতই না স্বপ্ন, কল্পনা। আর সে পাখিটিকে নিয়ে যদি হয় প্রদর্শনীর ব্যবস্থা। তাহলে তো কথাই নেই। একজনের পোষা পাখিকে দেখতে ভিড় করেছেন হাজার হাজার মানুষ। এমনই এক পাখি প্রদর্শনী করলো “এভিয়ান”। 

শুক্রবার (১৬ মার্চ) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরস্থ শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজন করা হয় এ প্রদর্শনীর। সকালে প্রদর্শনীর আয়োজন করেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাসেদ খান মেনন। এছাড়াও এসময় উপস্থিত ছিলেন শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ সেকান্দার আলী, বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ আনোয়ারুল হক বেগ ও ‘এভিয়ান’ এর পরিচালকগণ।

প্রদর্শনী আয়োজনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানতে চাইলে ‘এভিয়ান’ সভাপতি মোহাম্মদ আলী চৌধুরী বলেন, “আমরা সকলের সহযোগিতা চাই। আপনারা যারা প্রচার মাধ্যমে কাজ করছেন তাদেরও সহযোগিতা চাই। আমরা যারা এই পাখি নিয়ে কাজ করছি, এভিয়ান কাজ করছে, অন্য অনেক সংগঠন কাজ করছে। আমাদের জার্সি হয়ত ভিন্ন কিন্তু আমাদের প্লাটফর্ম একটাই, আমাদের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য একটাই।“

তিনি আরো বলেন, "যারা সৌখিন পাখি পালন করেন বা পালন করতে চায় তাদের উদ্ভুদ্ধ করাই আমাদের লক্ষ্য। বিশ্বের অনেক দেশ পাখি পালন করে অর্থ উপার্জন করছে। তাহলে আমাদের দেশের লোকজন কেন পারবে না? আমাদের দেশে এখনো অনেক বেকার সমস্যা আছে। শখের এই পাখি পালনকে যদি আমরা গুরুত্ব দিতে পারি তাহলে এটি একটি বড় শিল্প হয়ে উঠবে। তৈরি হয়ে আয়ের একটি বড় সংস্থান।“

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এ প্রদর্শনী সম্পর্কে জেনে অনেকেই এসেছেন প্রদর্শনী দেখতে। কেউ এসেছেন কৌতুহল থেকে, কেউবা পাখি পালনের সম্পর্কে জানতে-বুঝতে। বাবা-মা ছোট ছোট শিশুদের নিয়ে এসেছেন লাভ বার্ড, গ্রাস প্যারোট, ককাটিয়েল, লরি, লরিটিক, কনিউন, ফিঞ্চ, রিংনেক, রেইনবো বাজারিগার, ম্যাকাও এর মত অনেক কেজ বার্ডের সাথে পরিচয় করাতে।

মিরপুর-১ নম্বর এলাকা থেকে ‘এভিয়ান’র পাখি প্রদর্শনী দেখতে এসেছেন মোঃ দেলোয়ার হোসেন।  তিনি বলেন, “আমি পাখি পালন করি। তবে, শুধু বাজরিগার। দেখতে এলাম এখানে আর কি কি পাখি এলো। আর কোন কোন পাখি আমার পক্ষে পালন করা সম্ভব, তার একটু খোঁজ খবর নিতে এলাম।“

বনের পাখি বনে থাকবে। কেজ বার্ড থাকবে খাঁচায়। বাড়বে পাখির প্রতি ভালবাসা, বৃদ্ধি পাবে পাখির প্রজনন। সৃষ্টি হবে বাড়তি আয়ের উৎস। বেকারদের জন্য কেজ বার্ড পালন হতে পারে কর্মসংস্থান। এমনটাই আশা করেন আয়োজক কমিটি ‘এভিয়ান’। তাঁরা এও দাবি করেন, মাদকের মত নেশা থেকে তরুণ সমাজকে দূরে রাখতে পারে এই পাখি পালন। কারণ, পাখি পালন করতে গিয়ে এর পেছনে কিছুটা হলেও সময় দিতে হবে। তখন পাখি পালনটাই নেশা হয়ে দ্বাড়াবে। তরুণরা রক্ষা পাবে মাদকের হাত থেকে।

ট্যাগ: banglanewspaper পাখি প্রদর্শনী