banglanewspaper

তাঁর শেষ টেস্ট ম্যাচে দুনিয়া জুড়ে স্লোগান ছিল একটাই— ‘ধন্যবাদ ক্রিকেট ঈশ্বর’। রাজ্যসভা থেকে অবসরের পরেও আন্তরিক ধন্যবাদবার্তা পেলেন শচিন টেন্ডুলকার। আবারও এক মহৎ কাজের জন্য আলোচনায় ‘ক্রিকেট ঈশ্বর’ শচিন টেন্ডুলকার।

ভারতীয় সংসদের উচ্চকক্ষের (রাজ্যসভা) সদস্য ছিলেন এই ক্রিকেট কিংবদন্তি। তবে নিয়মিত সংসদে উপস্থিত না হওয়ায় বেশ কয়েকবারই সমালোচনায় পড়েছেন। কিন্তু এবার সেই সাংসদ হিসেবেই এক মহৎ কাজ করলেন শচিন। সাংসদ হিসেবে সম্প্রতি মেয়াদ শেষ হয়েছে শচিনের। কিন্তু সাংসদ হিসেবে তার বেতন ও ভাতার পুরোটাই দিয়ে গেলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে।

ছয় বছরের সাংসদ মেয়াদে শচিন রাজ্যসভায় এসেছেন মাত্র কয়েকদিন। এই ছয় বছরে বেতন ও অন্যান্য ভাতা হিসেবে শচিনের অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে ৯০ লাখ ভারতীয় রুপি। এই পুরো অর্থই তিনি প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করেছেন।

দেশটির প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শচিনের এই দান গ্রহণ করেছেন। তিনি শচিনকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন। আর্ত-মানবতার সেবায় ওই অর্থ ব্যয় করা হবে বলেও তিনি নিশ্চিত করেছেন।’

সাংসদ হিসেবে বরাদ্দ পাওয়া অর্থও বেশ কয়েকটি জনকল্যাণমূলক প্রকল্পে খরচ করেছেন শচিন। তার অফিস থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘এমপি ল্যাড হিসেবে পাওয়া ৩০ কোটি রুপির মধ্যে তিনি দেশে ১৮৫টি প্রকল্পের জন্য খরচ করেছেন ৭.৪ কোটি রুপি। এর অধিকাংশই শিক্ষা ক্ষেত্রে। এ ছাড়া ‘সাংসদ আদর্শ গ্রাম ‌নীতির’ আওতায় তিনি অন্ধ্রপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্রের দুটি গ্রামও দত্তক নিয়েছেন।’

২০১২ সাল থেকে রাজ্যসভায় প্রায় ৪০০ কর্মদিবস থাকলেও শচিন মাত্র ২৯ দিন উপস্থিত ছিলেন। এই কর্মদিবসে ২২টি প্রশ্নের উত্তর দিলেও কোনো প্রস্তাব উত্থাপন করেননি তিনি।

ট্যাগ: banglanewspaper প্রধানমন্ত্রী শচিন