banglanewspaper

ভারতের মধ্যপ্রদেশে হিন্দু ধর্মীয় ‘পাঁচজন বাবা’কে (যারা ধর্মীয় গুরু হিসেবে পরিচিত) প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা দিয়েছে রাজ্যের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার। দেশটির বিরোধীদল কংগ্রেস রাজ্য সরকারের এ পদক্ষেপের সমালোচনা করে বলছে, নির্বাচনী বছরে এসে ধর্মীয় আবেগকে কাজে লাগিয়ে ভোট টানার রাজনীতি করছে বিজেপি।

এই পাঁচ সাধু হলেন- নর্মদানন্দ মহারাজ, হরিহরানন্দ মহারাজ, কম্পিউটার বাবা, ভাইয়ু মহারাজ এবং পণ্ডিত যোগেন্দ্র মোহান্ত। মধ্যপ্রদেশের বিজেপি সরকারের এই পদক্ষেপের তীব্র সমালোচনায় সরব হয়েছে কংগ্রেস। খবর পিটিআইয়ের।

তাদের দাবি, এটি নিছকই ধর্মীয় আবেগকে কাজে লাগিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা ওঠানোর চেষ্টা। আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে ‘বাবাদের’ সর্মথন পেতেই তাদের এ মর্যাদা দেয়া হয়েছে। কংগ্রেসের রাজ্য মুখপাত্র পঙ্কজ চতুর্বেদী বলেছেন, ‘এটা রাজনৈতিক গিমিক ছাড়া কিছু নয়।

মধ্যপ্রদেশের বিজেপি সরকারের এই পদক্ষেপে নিয়ে স্বাভাবিক ভাবেই দানা বেঁধেছে বিতর্ক। কংগ্রেসের অভিযোগ, নির্বাচনে ধর্মগুরুদের ধর্মীয় আবেদন ব্যবহার করতে চাইছে সরকার। কংগ্রেসের মুখপাত্র পঙ্কজ চতুর্বেদী বলেন, ‘এটা চটকদারি রাজনীতি ছাড়া আর কিছু নয়। মুখ্যমন্ত্রী ভাবছেন, এই ভাবে তিনি সমস্ত পাপ ধুয়ে ফেলবেন। নর্মদার তীরে পোঁতা ছ’লক্ষ চারাগাছ কোথায় গেল, সেটি যেন সাধুরা তদন্ত করে দেখেন।’

তবে কংগ্রেসের সমালোচনাকে পাত্তা দিতে রাজি নয় বিজেপি। মধ্যপ্রদেশ বিজেপির মুখপাত্র রজনীশ অগ্রবাল বলেন, ‘সাধু-সন্ন্যাসীদের জন্য কিছু করা হলে কংগ্রেস সেটা কখনও ভাল ভাবে নেয় না। পাঁচ সাধুকে প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা দেওয়া হয়েছে, যাতে নর্মদা রক্ষার কাজটি তাঁরা ভাল ভাবে চালিয়ে যেতে পারেন।’

গত বুধবার প্রতিবাদী যাত্রা কর্মসূচি বাতিল করে কম্পিউটার বাবা বলেন, আমাদের দাবি মেনে কমিটি গড়েছে মধ্যপ্রদেশ সরকার। এখন আর যাত্রায় বেরনোর কী দরকার! কিন্তু সাধুর কি মন্ত্রীসান্ত্রীর মতো সুযোগ-সুবিধা নেওয়া সাজে? বাবার জবাব, ‘সরকারি সুযোগ-সুবিধা না নিলে নর্মদা রক্ষার কাজ করব কী ভাবে?’

ট্যাগ: banglanewspaper প্রতিমন্ত্রী ভারত হিন্দু