banglanewspaper

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বিতাড়িত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ থেকে সেদেশে প্রত্যাবাসনে সহযোগিতা করার জন্য জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবার রাতে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে টেলিফোনে আলাপকালে এ আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বাসসকে জানান, জাতিসংঘ মহাসচিব রাত ৯টা ২৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করেন এবং তাঁর সঙ্গে প্রায় ১২ মিনিট কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যু জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে উত্থাপনের জন্য জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসকে ধন্যবাদ জানান। তিনি জাতিসংঘ মহাসচিবকে জানান যে, তাঁর সরকার আসন্ন বর্ষা মৌসুমে অন্তত এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

শেখ হাসিনা জাতিসংঘ মহাসচিবকে বাংলাদেশে আসার এবং মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর দমন অভিযানের পর এ দেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের অবস্থা প্রত্যক্ষ করার আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পাদিত মিয়ানমারের চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়নের ব্যাপারেও জাতিসংঘ মহাসচিবের সহযোগিতা কামনা করেন।

জাতিসংঘ মহাসচিব ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়ে মানবিকতা দেখানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করেন।

প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ ও মিয়ানমার ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গাকে তাদের নিজ ভূমিতে প্রত্যাবাসনের জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে উল্লেখ করে এ চুক্তি বাস্তবায়নে জাতিসংঘ মহাসচিবের সহায়তা কামনা করেন।

গত বছরের ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে সেনাবাহিনী। এতে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাস্তুচ্যুত্য হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। এ ছাড়া কয়েক হাজার রোহিঙ্গাকে হত্যার অভিযোগও পাওয়া গেছে। জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা ও দেশ এটাকে ‘জাতিগত নিধন’ বলেও অভিহিত করেছে। রোহিঙ্গাদের ওপর দমন, নির্যাতন, গণধর্ষণ, গণহত্যার অভিযোগ এনে জড়িত সেনা কর্মকর্তাদের শাস্তি দাবি করা হয়েছে।

ট্যাগ: banglanewspaper প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ মিয়ানমার রোহিঙ্গা