banglanewspaper

অস্ট্রিয়ার প্রাথমিক স্কুলের ছাত্রীদের হিজাব পরা নিষিদ্ধ হতে পারে। এই রীতি অস্ট্রিয়ার সংস্কৃতির বিরোধী বলে তা নিষিদ্ধ করার জন্য তোড়জোড় করছে অতি দক্ষিণপন্থি সরকার।

কিন্ডারগার্টেন ও প্রাইমারি স্কুলে মেয়েদের হিজাব পরার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চলেছে অস্ট্রিয়ার চরম ডানপন্থী সরকার। এটি অস্ট্রিয়ার মূলধারার সংস্কৃতির পরিপন্থী দাবি করে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানাচ্ছে দেশটির সরকার। খবর রয়টার্সের।  

অস্ট্রিয়ার চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুরজ স্থানীয় একটি রেডিওকে বলেছেন, অস্ট্রিয়ায় সমান্তরাল সমাজব্যবস্থার বিকাশকে ঠেকানোই আমাদের লক্ষ্য। শিশু শ্রেণিতে ছাত্রীদের হিজাবে নিষেধাজ্ঞা আমাদের সেই নীতিরই অংশ।

অস্ট্রিয়া সরকারের নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী, ১০ বছর পর্যন্ত ছাত্রীরা স্কুলে হিজাব পরে যেতে পারবে না।

কুরজ বলেন, কয়েক দশক আগেও অস্ট্রিয়ার মানুষ হিজাব চিনতো না। এখন ইসলামিক স্কুল তো বটেই বিভিন্ন সাধারণ স্কুলেও শিশুরা হিজাব পরে আসছে।

এই নিয়ে আইন তৈরি করতে ইতোমধ্যে উদ্যোগী হয়েছে অস্ট্রিয়ার শিক্ষা মন্ত্রণালয়। স্কুলগুলোর কাছে শিশু শ্রেণির কত ছাত্রী হিজাব পরে আসে তা জানতে চাওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ফ্রান্সসহ ইউরোপের কয়েকটি দেশে প্রকাশ্যে হিজাব পরায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

এর আগে মুসলিম নারীদের জন্য বোরকা ব্যবহার নিষিদ্ধ করে অস্ট্রিয়া সরকার।

উল্লেখ্য, উদ্বাস্তুদের আশ্রয় দেয়ার পশ্চিমা নীতির কড়া বিরোধিতা করেই গেলো বছর নির্বাচনে জিতেছিলেন কুরজ। সিরিয়ায় মানবিক সংকটের পর মাত্র ১ শতাংশ উদ্বাস্তুকে আশ্রয় দিয়েছে অস্ট্রিয়া।

ট্যাগ: banglanewspaper অস্ট্রিয়া হিজাব