banglanewspaper

ঢাবি প্রতিনিধি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের  এক ছাত্রীকে মদ খেয়ে উত্যক্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দারুস সালাম শাকিলের বিরুদ্ধে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে এই  ছাত্রী  এ অভিযোগ করেন।  অভিযোগকারী রোকেয়া হলের আবাসিক ছাত্রী।

বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল চলছে সেই নেতার মদ্যপানরত একটা ছবিসহ ওই ছাত্রীর স্ট্যাটাসের স্ক্রিনশট।

ওই স্ট্যাটাসটিতে ‘স্ট্যান্ড এগেইনস্ট হ্যারাসমেন্ট’ ও ‘স্ট্যান্ড এগেনইন্সট দারস সালাম শাকিল’ নামে পৃথক দুটি হ্যাশট্যাগ দিয়ে ওই ছাত্রী জানান,গত কয়েকবছর ধরে ওই ‘দাপুটে’ নেতা শাকিল তাকে উত্যক্ত করে আসছিলেন। তার জীবনকে অতিষ্ট করে তুলছিলেন। শেষ পর্যন্ত সহ্য করতে না পেরে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের আশ্রয় নিয়েছেন বলে জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, মেয়েদের জন্য নাকি নারী দিবস আছে। কত সভা মিটিংয়ে নারীদের নিয়ে কথা হয় নারীদের অধিকার নিয়ে কথা হয়।কিন্তু আমার তো ফেসবুকে নারীদের নিয়ে মহৎ কথার দরকার নেই। বাসের উপরতলায় বসতে দেয়ার ও দরকার নেই। আমার দরকার আমার একটু অধিকার থাকবে যেখানে কোন পলিটিক্যাল নেতা আমার জীবনটা ‘জ্বালিয়ে খাবে‘না। তাকে পুলিশে দেয়া যাবে, বিচার হবে তার।

রাত ২টার সময়  মদ খেয়ে ওই ছাত্রনেতা আমাকে ফোন দিয়ে নোংরা কথাবার্তা বলে দেয়। তার প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ভয়ে আমি ফোন, ফেসবুক সব ব্যবহার করা বন্ধ করে দিসি। আমি আজ লিখতে বসেছি অনেক কষ্ট নিয়ে। নিজেকে বুঝাচ্ছি মেয়ে হয়ে জন্ম নিয়েছি। তাই এ শাস্তি  আমার প্রাপ্য। শুধু আমি নই আমার রুমমেট ছোটবোনদের ও তার ডিস্টার্বের শিকার  হতে হয়েছে। আমার আপন ছোটবোনকেও ফোন দিয়ে আজেবাজে কথা বলে। বোন আমাকে প্রায়ই বলে আপs, শাকিল নামে একটা ছেলে আমাকে জ্বালাচ্ছে।’

‘আমার বন্ধুবান্ধবদেরকে জ্বালায়। মাঝে মাঝে ইচ্ছে করে ৫ তলা থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করি। তাহলে এত অপমানজনক কথাবার্তা শুনতে হবে না। মাঝে মাঝে ক্লাসরুমে এসেও বিরক্ত করে। এসবের জন্য বন্ধুবান্ধব আমার উপর বিরক্ত হয়ে কথা বলে না। শাকিল আমাকে, বলে তোমার না অনেক সাহস, এখন আমাকে দেখাও সেটা’।

এ বিষয়ে ছাত্রীর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও তিনি নিরব আছেন। তার এক ঘনিষ্ঠ বান্ধবী জানান, মানসিকভাবে সে খুব বিপর্যস্ত। তাই তার সাথে কোন ধরনের যোগাযোগ এখন সম্ভব না।

তবে বিষয়টি জানতে চেয়ে একাধিকবার ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও ফোন রিসিভ করেননি ওই কেন্দ্রীয় নেতা।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক কেউই ফোন রিসিভ করেন নি।

জানতে চাইলে ঢাবি প্রক্টর গোলাম রাব্বানী বলেন, এ বিষয়ে আমাদের কাছে কোন অভিযোগ আসেনি।তাই আমরা এই ব্যাপারটা জানিনা। তবে কেউ অভিযোগ করলে নিশ্চয় তদন্ত হবে।

ট্যাগ: Banglanewspaper ঢাবি ছাত্রী ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নেতা শাকিল