banglanewspaper

মোস্তফা ইমরান রাজু, কুয়ালালামপুর, মালয়েশিয়া: উৎসবমুখর পরিবেশে বাংলা নতুন বছর ১৪২৫ সালকে বরণ করে নিয়েছে মালয়েশিয়া প্রবাসী বাংলাদেশীরা। রাজধানী কুয়ালালামপুর ও এর আশপাশের কয়েকটি রাজ্যে বৈশাখি উৎসব পালিত হয়েছে। 

শনিবার পহেলা বৈশাখে কুয়ালালামপুরের পর্যটনখ্যাত বুকিত বিনতাং এর রসনা বিলাস রেস্টুরেন্টে প্রবাসীরা একসঙ্গে মিলিত হন। ‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো’ গানে কণ্ঠ মিলিয়ে বাংলা নতুন  বছরকে বরণ করে নেন তারা। পান্তা, ইলিশ আর  ভর্তা, ভাজি’র আয়োজনে বৈশাখি উৎসব এক অন্য  মাত্রায়  রুপ নেয়। 

রেস্টুরেন্টের স্বত্ত্বাধীকারি তানিয়া রহমান বলেন, প্রবাসে দেশীয় সংস্কৃতি ধরে রাখতে আমাদের  এই  ক্ষুদ্র  প্রয়াস। এসময় বাংলাদেশ কমিউনিটি প্রেসক্লাব মালয়েশিয়ার  সভাপতি এস এম রহমান পারভেজ,  মালয়েশিয়া আওয়ামীলীগের প্রস্তাবিত কমিটির সভাপতি মকবুল হোসেন মুকুল, যুবলীগের আহ্বায়ক তাজকির আহমেদ, মালয়েশিয়া বিএনপি’র  সিনিয়র সহ-সভাপতি মাহবুব আলম শাহ, কোতারায়া বিজনেস কমিউনিটির সভাপতি রাশেদ বাদলসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ  উপস্থিত ছিলেন।    

দিনব্যাপী বৈশাখী উৎসবে ছিল নাচ-গান, মুখে রংয়ের আল্পনা আঁকা ও জনপ্রিয় বাউল গান পরিবেশন এবং বাংলাদেশ থেকে আগত শিল্পীদের সমন্বয়ে বাউল শাহ আব্দুল করিমের গান আর বাদ্যযন্ত্রের মূর্ছনায় তারা বিমোহিত হয়ে যান।  

এদিকে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকা কোতারায়ার  যুবকদের সংগঠন “আমরা  প্রবাসী যুবসংঘে”র উদ্যোগে পঞ্চম প্রতিষ্ঠাবার্ষীকি ও  পহেলা বৈশাখ পালন করা হয়েছে। মুজিবর রহমানের সভাপতিত্বে, জাফর  ফিরোজের সঞ্চালনা ও বাদল কারারের শুভেচ্ছা বক্তব্যের  মধ্য দিয়ে শুরু হয় মুল অনুষ্ঠান। 

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে ছিলেন, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ খান, উপদেষ্ঠা মামুনুর রশিদ, দাতো  সেলিম, লিটন আবাদ, আক্তার  হোসেন গাজি, আব্দুল করিম,  এস কে সেন্টু, রাশেদ  বাদল, বাহার  উদ্দিনসহ অনেকে। বিদেশের  মাটিতে  দেশীয় আমেজে বৈশাখি  উতসব পালন  করায়  আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান উপস্থিত বক্তারা। 

মোহাম্মদ মামুনের কোরআন তেলাওয়াতের মধ্যদিয়ে শুরু  হওয়া  অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন শাহ পরান, হানিফ, জাকির হোসেনসহ অনেকে। 

পঞ্চম প্রতিষ্ঠাবার্ষীকি ও বৈশাখ  উপলক্ষে আয়োজিত  অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার জন্য আমন্ত্রিত অতিথিদের ধন্যবাদ জানান ‘আমরা প্রবাসী যুবসংঘে’র নেতৃবৃন্দ।
মালয়েশিয়ার সিঙ্গাপুর সীমান্তবর্তি শহর জোহর বারু’র ইউনিভার্সিটি টেকনোলজির বাংলাদেশী ছাত্র-ছাত্রীদের আয়োজনে প্রথমবারের মত গোড়াপত্তন পালিত হলো মঙ্গল শোভাযাত্রার। সকালে শোভাযাত্রাটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে পান্তা-ইলিশ ও নানা রকম বাহারী বৈশাখী আয়োজনে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

মালয়েশিয়ার কোতা দামানসারা সেগী ইউনিভার্সিটির হসপিটালিটি এন্ড ট্যুরিজম মেনেজমেন্টের বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা বর্ষবরণ করেছে।
বাহারি রংয়ের পোশাক আর সুর-ছন্দ ও তাল-লয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেয় তারা। অনুষ্ঠানে গান, কবিতা আর বাদ্যযন্ত্রের মুর্ছনায় আগত বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা মুগ্ধ হন। অনেকে শিল্পীদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে অনুষ্ঠানস্থল মুখরিত করে তোলেন। অনুষ্ঠানে ছিল পান্তা-ইলিশ ও বাহারী রকমের বৈশাখী খাবার। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর মো: সায়েদুল ইসলাম। এছাড়া সেগী কলেজের অপারেশন প্রধান ইদা চিনি, ডিপার্টমেন্ট অফ হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম বোনি লোপেজ ও কমিউনিটি নেতা শাখাওয়াত হক জোসেফ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, মালয়েশিয়ার অন্যান্য জায়গায়ও সকাল থেকে বাংলাদেশী নানা সংগঠনের উদ্যেগে উদাযাপিত হয়েছে বাংলা নববর্ষ। বিকেলে বাংলাদেশী এক্সপার্টস ইন মালয়েশিয়া বৈশাখ উপলক্ষে। বাংলাদেশি মালিকানাধীন রেস্টুরেন্ট গুলোতেও চলে পান্তা-ইলিশসহ বাহারী বৈশাখী খাবারের মেলা।

ট্যাগ: banglanewspaper মালয়েশিয়া বৈশাখ উৎসব