banglanewspaper

শরীফ আনোয়ারুল হাসান রবিন: পহেলা বৈশাখ উদযাপন উপলক্ষে সমাজের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের নিয়ে জেলা প্রশাসকের বাসভবনে দিনভর এক ভিন্ন উৎসবের আয়োজন করেছিলেন এদিন মাগুরার জনবান্ধব জেলা প্রশাসক আতিকুর রহমান। দিনভর  উৎসবমুুখর পরিবেশে নানা আয়োজনে সীমাহীন আনন্দে মেতেছিল এসকল শিশুরা।

এসব দেখে সাথে আসা তাদের অভিভাবকরাও হয়েছেন অভিভূত। পহেলা বৈশাখের এমন উৎসবে এ সকল শিশুদের সম্পৃক্ত করে আনন্দ দিতেই এমন আয়োজন করেন মাগুরা জেলা প্রশাসন।

পহেলা বৈশখ উপলক্ষে সমাজের সুবিধা বঞ্চিত মাগুরা শিশু পরিবাররের এতিম ও শহরের বুদ্ধিপ্রতিবন্ধি শিশুদের জন্য মাগুরা জেলা প্রশাসকের বাসভবন জুড়ে মিলন মেলায় এদিন ছিলো উৎসবের নানা আয়োজন। দিনভর এ সকল শিশুর নাচে গানে হাসি হট্রগোলে মুখরিত হয়ে ওঠে বাসভবন প্রাঙ্গন। 

তাদের মিলন মেলার এ উৎসবের নানা আয়োজনের মধ্যে হাতে মেহেদির কারুকাজ, নাচ, গানের আসর, হাওয়াই মিঠাই, রকমারি খেলনা সামগ্রী দিয়ে সাজানো দোকানসহ মেলার আয়োজন ছিলো অন্যতম।

সাথে বাসভবন প্রাঙ্গনের ঝুলন্ত রিং, দোলনাসহ সকল উপকরন  নিজের ইচ্ছামতো ব্যাবহারের সুযোগে সীমাহীন খুশিতে আত্বহারা শিশুদের আনন্দঘন সে দৃশ্য ছিলো চোখে পড়ার মতো। 

২৮ বছর বয়সী বুদ্ধিপ্রতিবন্ধি মুনিরা তাসনিমের  ভাষায় "যেন স্বর্গের সুখ অনুভব কচ্ছি" বলেই অনুভুতি জানালো সে। তার মা সামসুন্নাহার জানালেন পহেলা বৈশাখে তাদের শিশুদের নিয়ে জেলা প্রশাসকের এমন আয়োজনে তাদের শিশুরা যেমন আনন্দিত সাথে তারাও। তাদের শিশুদের জন্য এমন আয়োজন আগে কোনদিন পাননি বলে আবেগে জড়িত কন্ঠে তিনি জেলা প্রশাসকের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আরও দির্ঘদিন নিজেদের মাঝে তাকে পাবার আশা ব্যাক্ত করেন।

তিনি আরও বলেন যখন নিজেদের পারিবারিক অনেক উৎসব আয়োজনের অনুষ্ঠান থেকে তাদের শিশুদের কে রিরত রাখা হয়, আর সেখানে তাদের জন্য একজন জেলা প্রশাসকের এমন আয়োজনে তিনি মুগ্ধ হয়েছেন, আবেগী কান্নাজড়িত কন্ঠে তার দীর্ঘায়ু কামনা করেন তিনি। এই একই অনুভুতি শ্বাশ্যতের মা মলিনা সাহা, সাকিব হুসাইনের মা সাফিয়া খাতুনেরও।

শিশু পরিবারের অধিকাংশের ভাষায় এই দিনটি জীবনে তাদের কাছে স্বরনীয় দিন হয়ে থাকবে বলেই জানায় তারা। শিশু পরিবারের ক্রীড়া প্রশিক্ষক লিলি জানান, এতিম এ শিশুরা সমাজের প্রায় সকল সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত, এদের জীবনের  বিশেষ দিনগুলিও অন্য আর দিনগুলির মতোই মলিন।

সেই তাদের জন্য জেলা প্রশাসকের এমন মহৎ উদ্যোগ প্রশংসনীয় তিনি আরও বলেন,  বর্তমান জেলা প্রশাসক আতিকুর রহমান জেলাতে আশার পর থেকেই মাগুরা শিশুপরিবারের শিশুদের জীবন মান উন্নয়নে সর্বাত্বক চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, ইতিমধ্যে তাদের জীবনে অনেক পরিবর্তন এনে দিয়েছেন। তার মতো করে সমাজের উচ্চবিত্ত সহ সকলে যদি যার যার অবস্থান থেকে এভাবে এগিয়ে আসেতেন তবে এ সকল শিশুরা কোন সুযোগ থেকেই বঞ্চিত হতো না, এদের মাঝেও অনেক প্রতিভা আছে যার বিকাশ হতে পারতো, মাত্র কয়দিনের পৃষ্ঠপোষকতায় সম্প্রতি এখান থেকে দুই জন বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বি কে এস পি তে সুযোগ করে নিয়েছে।

জেলা প্রশাসক জনাব আতিকুর রহমান জানান, এ ধরনের উৎসবে সমাজের সুবিধা বঞ্চিত এ সকল শিশুদের সম্পৃত করে আনন্দ দিতেই তার এ ভিন্ন আয়োজন। এই আনন্দে তারা আরও উৎসাহিত ও উজ্জীবিত হবে বলে আশা ব্যাক্ত করে ভবিষ্যৎতেও এমন আয়োজনের ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে বলে জানান তিনি।

ট্যাগ: Banglanewspaper সুবিধা বঞ্চিত