banglanewspaper

হুমায়ুন কবির: কুষ্টিয়ার খোকসায় গৃহবধূ শারমিন আক্তার বানু হত্যার ২৮ দিন পর পলাতক স্বামী দেলোয়ার হোসেন আপনকে আটক করেছে পুলিশ। ঘাতক আপনকে ফাঁসির দাবি করছে নিহতের শিশুকণ্যা বন্যা।

কুষ্টিয়ার খোকসা থানা অফিসাস ইনচার্জ বজলুর রহমান জানান, সোর্স ও আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগ করে শারমিন ভানু হত্যাকারী স্বামী দেলোয়ার হোসেন আপনের অবস্থান নিশ্চিত করা হয়।

এর সূত্র ধরে মঙ্গলবার দুপুরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চাকলাদার আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সুনামগঞ্জে অভিযান চালিয়ে ঘাতককে আটক করা হয়। পরে তাকে রাতেই খোকসা থানায় আনা হয়।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রধান আসামী আপনকে কোর্টে প্রেরণের প্রস্তুতি চলছিল।

পুলিশ জানায়, আটক দেলোয়ার হোসেন স্ত্রী হত্যার কথা স্বীকার করেছে। মামলা তদন্তের স্বার্থে তাকে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

নিহত গৃহবধূর একমাত্র কন্যা চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী বন্যা (১০) তার মায়ের খুনির ফাঁসি দাবি করেন। 

এদিকে নিহত শারমিন আক্তার ভানুর মৃত্যুর ১৭ দিন পরে তার বাবা হাসেন আলী শেখ (৭৬) মেয়ের শোকে মারা যান। ভানুর একমাত্র কন্যা বন্যা এখন  নানী জহুরা খাতুনের আশ্রয়ে রয়েছে।

উল্লেখ্য নিহত শারমিন আক্তার ভানুর প্রথম স্বামীর মৃত্যুর পর সাত বছর আগে গার্মেন্টস এর কাজ করার সুবাদে পরিচয় হয় দেলোয়ার হোসেন আপনের সাথে। দুজনের আলাপ-আলোচনায় এক মত হওয়ায় পরবর্তীতে তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। 
 
পুলিশ বলছে পারিবারিক অন্তদ্বন্দ্ব ও কলহের এক পর্যায়ে নৃশংসভাবে কোদাল দিয়ে ভানুকে হত্যা করে ঘাতক স্বামীর দেলোয়ার হোসেন আপন।

ট্যাগ: Banglanewspaper খোকসায গৃহবধূ ভানু আটক