banglanewspaper

ঢাবি প্রতিনিধি: বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৯তম জাতীয় সম্মেলনের উপস্থিত হওয়ার শুরুতেই সোহরওয়ার্দী উদ্যানের মধ্যে সংগঠনটির দুই গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার বিকেল সোয়া চারটার দিকে উদ্যানের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলে উপস্থিত জনতার মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। যেসময় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্যানে পৌছান ঠিক সেই সময়ে এ ঘটনা ঘটে।

সরেজমিনে দেখা যায় যে, উদ্যানের মধ্যে কালি মন্দিরের পশ্চিম পার্শ্বে এই দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এর এক পর‌্যায়ে সেখানে উপস্থিতি ঢাবির এক নেতার মাথায় জাবি ছাত্রলীগের এক কর্মী বাঁশ দিয়ে আঘাত করে। সাথে সাথে আঘাতপ্রাপ্ত ওই কর্মীর সাথে থাকা ঢাবির নেতাকর্মীরা পাশে থাকা লাঠি, বাশ, ইটপাটকেল দিয়ে অপর গ্রুপের নেতাকর্মীদের উপর ঝাপিয়ে পড়ে। এতে দুই গ্রুপের মধ্যে প্রায় বিশ মিনিট ধরে সংঘর্ষ চলতে থাকে।

এসময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছাত্রলীগ নেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হল, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল, বঙ্গবন্ধু হলের নেতাকর্মীদের সাথে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাকর্মীদের সাথে সংঘর্ষ হয়।

ওই সংঘর্ষের সময় বিজয় একাত্তর হলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ-সম্পাদক সাকিব আল হাসান, শাবাব, বঙ্গবন্ধু হল শাখা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক সাদিকুর রহমান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আসিফ আরাফাত অয়নসহ প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। অন্য দিকে জাবির প্রায় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

ঢাবির নাম প্রকাশ না করা এক ছাত্রলীগ কর্মী বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাকর্মীরা ঢাবি ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের গায়ে হাত দিবে এটা আমরা মানবো না। এটা হতে পারে না।  

এসময় সম্মেলনে আসা ছাত্রলীগের অন্যান্য নেতাকর্মীরা চারিদিকে ছোটাছুটি করতে থাকে। পরে ঢাবির ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জাবি ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের তাড়িয়ে দেয়।

ট্যাগ: banglanewspaper প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগ