banglanewspaper

ডেস্ক রিপোর্ট: মেয়েকে নির্যাতনে বাঁধা দেয়ায় মাদারীপুরের কালকিনিতে জামাতার পিটুনিতে শাশুড়ি মারা গেছেন। নিহতের নামা শেফালী বেগম (৪০)। রবিবার রাত ৮টার দিকে বরিশাল সেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান বলে নিহতের পরিবার জানান।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানায়, উপজেলার নবগ্রাম এলাকার উত্তর খিলগ্রামের ওপেন বাড়ৈর মেয়ে মমতা বেগমের সঙ্গে পশ্চিম শশীকর গ্রামের সূর্য রায়ের ছেলে রবিন বাড়ৈর বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই রবিন বাড়ৈ যৌতুক দাবিতে বিভিন্ন সময় মমতা বেগমকে শারীরিক নির্যাতন করে আসছিল। শুক্রবার শেফালী বেগমের সামনে মেয়ে মমতা বেগমকে মারধর করলে তিনি বাধা দেন। 

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রবিন বাড়ৈ শাশুড়িকে মারধর করেন। গুরুতর আহত অবস্থায় শেফালী বেগমকে বরিশাল সেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় ডাসার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন নিহতের পরিবার। সোমবার ডাসার থানা পুলিশ যৌতুকলোভী রবিনের বোন জামাই উজ্জল সংকরকে আটক করেন। তবে ঘটনার পর থেকেই রবিন বাড়ৈ পলাতক রয়েছেন।

নিহতের মেয়ে মমতা বেগম বলেন, আমি আমার মায়ের হত্যাকারীর বিচার চাই।

এ ব্যাপারে ডাসার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক বলেন, জামাতার মারধরে শ্বাশুড়ির শেফালী বেগমের মৃত্যু হয়েছে। থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারের জোর প্রচেষ্টা চলছে।

ট্যাগ: Banglanewspaper জামাই শাশুড়ি