banglanewspaper

এম. ডি. ইউসুফ, স্বরূপকাঠি প্রতিনিধি : স্বরূপকাঠির মিয়ারহাট ও ইন্দেরহাট বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেছেন নির্বাহী মেজিস্ট্রেট ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ কাউসার হোসেন।

সোমবার দুপুর ২টা থেকে বেলা ৪টা পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়। এসময় নির্বাহী মেজিস্ট্রটের সামনে মিয়ারহাট বাজারের বেপারী বাড়ির ফারুক হোসেনের তিনটি ভাড়াটিয়া ঘর থেকে প্রায় এক লক্ষ মিটার কারেন্ট জাল উদ্ধার করে উপজেলা মৎস অফিসের ও কোস্ট গার্ডের সহায়তায়। মেজিস্ট্রটের সামনে কারেন্ট জাল ব্যবসায়ী মোঃ রাসেল ও ইব্রাহীমকে উপস্থিত করতে না পারায় ঘর মালিক ফারুক হোসেন (৬০)কে এক বছর কারাদন্ড দেয়।

মিয়ারহাট বাজারের এক পল্লী চিকিৎসক সমরেস সমদ্দার অপচিকিৎসারত অবস্থায় মেজিস্ট্রেটের মুখোমুখি হয় এবং তার(সমরেসের) চেম্বারে পুরানো রোগীদের সাথে কথা বলে জানতে পারেন তিনি হাড়কাটাসহ বেশ সার্জারিক্যাল কাজ করেন। এক পর্যায় তার চেম্বারের পিছনে দেখা মেলে কাটা ছেড়ার অনেক যন্ত্রাংশ এবং নোংরা পরিবেশেই এসব কাজ করা হয়, তার ব্যবস্থাপত্রে ডাঃ লেখা।

চিকিৎসকের কোন সনদ না দেখানো, নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে জনগনের সাথে প্রতারনা করা ও সার্জিক্যাল কাজের অপরাধে সমরেষ সমদ্দার(৫০)কে এক মাসের কারাদন্ড ও এক লক্ষ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদন্ডের দেয়া হয়।

ইন্দেরহাট বাজারের নিত্যনন্দন মিস্টান্য ভান্ডারকে বিশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। ইন্দেরহাট শিল্পি ব্যাটারী ঘাটে কোস্টগার্ড ও মৎস্য অফিসের কর্মকর্তাদের এবং উভয় বাজারের শতাধীক ব্যবসায়ি ও সাধারণ জনতার সামনে এই রায় ঘোষণা করেন নির্বাহী মেজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ কাউসার হোসেন।

ট্যাগ: banglanewspaper স্বরূপকাঠি