banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিনিধি: বাংলা সাহিত্যের কবি, সাহিত্যিক ও সংগীতজ্ঞ কাজী নজরুল ইসলাম ১৮৯৯ সালের ২৫ মে(১১ ই জৈষ্ঠ,১৩০৬ বঙ্গাব্দ) পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আসানসোল মহাকুমার চুরুলিয়া গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন। পিতা ছিলেন কাজী ফকির আহমদ ও মাতা জাহেদা খাতুন। 

নজরুল ইসলাম দশ বছর বয়সে(১৯০৯) গ্রামের মক্তব থেকে প্রাথমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯১৪ সালে ত্রিশালের দরিরামপুর স্কুলে এবং ১৯১৭ সালে এসএসসি পরীক্ষার আগে আর্থিক অনটনের কারনে তিনি ব্রিটিশ  সেনাবাহিনির ৪৯ নম্বর বাঙ্গালি পল্টনে যোগ দেন।

নজরুল ইসলাম অর্থের অভাবে লেখাপড়া চালাতে পারেননি। তাকে জীবিকার তাগিদে  কাজ করতে হয়েছে কখোনো রুটির দোকানে কখনো লেটোর দল গান রচনা করতে হয়েছে। নজরুল ইসলাম সংগ্রাম করতে ভালবাসতেন। 

কাজী নজরুল ইসলাম ১৯২৪ সালের ২৪ এপ্রিল আশালতা সেনগুপ্ত নামে এক মহিলাকে বিয়ে করেন, অবশ্য পরে নাম পাল্টে "প্রমীলা" রাখেন। কাজী নজরুল যে অসাম্প্রদায়িক ছিলেন তার প্রমান মিলে তার ছেলেদের নাম রাখায়। 

কাজী নজরুল একজন অসাম্প্রদায়িক কবি ও সাহিত্যিক ছিলেন। তিনি মানব ধর্মে বিশ্বাস করতেন। তিনি সাম্যে গান গাইতেন। কার্ল মার্কস যেমন চেয়েছিলেন, সমাজে সবাই সমান অধিকার পারে, তেমনি কাজী নজরুল ও চাইতেন মানুষ জাতি সবাই সমান। কেন এত ভেদাভেদ, কেন মারামারি , কেন খুনাখুনি,কেনইবা এতো কোন্দল, আর কেনইবা এত আইন আদালত। তিনি বিশ্বাস করতেন মানব ধর্মই বড় ধর্ম। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ধর্ম মানুষের মন। তাই তিনি তার লেখনিতে সবচেয়ে বেশিই গেয়েছেন সাম্যের গান।

কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্য জগতকে অনেক কিছু উপহার দিয়েছেন। তিনি রচনা করেছেন নানান সাহিত্য গান, ছড়া, ছোটগল্প, নাট্যগ্রন্থ, প্রবন্ধ, কবিতাসহ আরো অনেক কিছু। অগ্নি -বীণা, বিশের বাঁশি, দোলন-চাঁপা, প্রলয় শিখা, সন্ধ্যা ও সাম্যবাদী সহ আরো অনেক কাব্যগ্রন্থ রচনা করেন। এছাড়াও তিনি কয়েকটি উপন্যাস , নাটক, প্রবন্ধ রচনা করেন।

তিনি কতগুলো পত্রিকা সম্পাদনা করেন তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল "ধূমকেতু"(১৯২২)। এছাড়াও তিনি " সন্ধ্যা দৈনিক নবযুগের" যুগ্মসম্পাদক ছিলেন। ধূমকেতুতে তার "আনন্দময়ীর আগমনে" কবিতা প্রকাশিত হলে তিনি গ্রেফতার হন।

তিনি বাংলাদেশের রণসংঙ্গীত রচনা করেন। তার এ রণসংঙ্গীত 'সন্ধ্যা' কাব্যগ্রন্থে প্রকাশিত হয়। ১৯৭২ সালে নজরুলকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব দেয়া হয় এবং তিনি তার পর থেকেই বাংলাদেশেই থাকেন।

নজরুলকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় ও ভারত সরকার ১৯৪৫ সালে জগত্তারিণী স্বর্ণপদক ও ১৯৬০ সালে পদ্মভূষণ পদক দেন। তাকে ১৯৭৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডি-লিট উপাধি দেন।১৯৭৬ সালে তাকে একুশে পদক দেন বাংলাদেশ সরকার। ২০০৪ সালে বিবিসির বাংলা বিভাগের জরিপে তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালির তালিকায় ৩য় স্থান অধিকার করেন।

২৯ আগষ্ট , ১৯৭৬ সালে( ১২ ভাদ্র, ১৩৮৩ বঙ্গাব্দ) অকুতোভয় , অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার মানবতাবদী কবি কাজী নজরুল ইসলাম শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন এবং তার ওছিয়ত মতে তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের ডানপাশে সমাহিত করা হয়।

ট্যাগ: Banglanewspaper কাজী নজরুল