banglanewspaper

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) প্রতিনিধিঃ ইন্দুরকানীতে প্রতারণা করে অন্তঃসত্তাকে বিয়ে দেয়ার ১৮ দিনে গৃহবধূর সন্তান প্রসব করায় এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এলাকাবাসীর প্রশ্ন কে এই শিশুর পিতা? ঘটনাটি গত শনিবার সকালে ঘটলেও ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে গৃহবধূর পিতামাতা। অবশেষে সোমবার বিষয়টি উন্মোচন হয়ে যায়।

জানা যায়, উপজেলার উত্তর কলারণ গ্রামের রফিকুল ইসলামের অনার্স পড়ুয়া ছেলে মো. সৈকত (২১) পিতামাতার সম্মতিতে পার্শ্ববর্তী কলারণ গ্রামের সোহেল মাঝির দাখিল পরীক্ষার্থী মেয়ে সুমাইয়া আক্তার (১৫) এর সাথে এ বছর ২৫ মার্চ বিবাহ রেজিষ্ট্রি হয়। কিন্তু দেড় মাস পর ৮ মে আনুষ্ঠানিক ভাবে সৈকত তার স্ত্রীকে বাড়ি তুলে নেয়। মূলত বাড়িতে তুলে নেয়ার পর স্ত্রীর সাথে তার স্বামীর বাসর সম্পন্ন হয়।

কিন্তু বাসর সম্পন্নের ১৮ দিন পর ২৬ মে ওই গৃহবধূ স্বামীর বাড়িতে একটি কন্যা সন্তান প্রসব করে। বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেও শেষ রক্ষা হয়নি। ঘটনাটি পরবর্তীতে ওই গৃহবধূর স্বামী সৈকত তার সাথে ঘটে যাওয়া প্রতারণার কথা সবাইকে বলে দেন। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়। মেয়েকে বিয়ে দেয়ার সময় মেয়ের পিতামাতা অন্তঃসত্তা হওয়ার বিষয়টি গোপন করে।

সৈকত সাংবাদিকদের জানান, আমার স্ত্রীর সাথে আমার মাত্র ১৮ দিনের মেলামেশা হয়েছে। আমি তার পেট উচু দেখে জানতে চাইলে সে বলে আমার পেটে চর্বি হয়েছে। আমার সাথে প্রতারণা করে বিয়ে দিয়েছে। আমি তার পেটে বাচ্চার প্রকৃত পিতার নাম জানতে চাইলে সে বলতে অস্বীকৃতি জানায়। অবশেষে গত ২৬ মে আমার বাড়িতে বসে আমার স্ত্রী একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেয়। আমি এ স্ত্রীকে নিয়ে সংসার করব না। আমার স্ত্রীর সাথে আমার পূর্ব কোন পরিচয় ছিল না। সন্তান প্রসব করে অসুস্থ হয়ে পড়লে ওই গৃহবধূকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. মিজানুর রহমান জানান, সৈকতের স্ত্রীকে বাড়িতে তুলে আনার ১৮ দিনের মধ্যেই সন্তান জন্ম দেয়। বিষয়টি জেনে আমি ছেলের বাবাকে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছি।

মেয়ের পিতা সোহেল মাঝির সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তার এক বোন ফোনটি রিসিভ করে বলেন, বিষয়টি জেনেছি এখন আমরা এর সমাধান করার চেষ্টা করছি। অপরদিকে শিশুটির পিতৃ পরিচয় নিয়ে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। 

ইন্দুরকানী থানার ওসি মো. নাসির উদ্দিন জানান, ‘বিষয়টি আমি শুনেছি। তবে অসুস্থ গৃহবধূকে ও সন্তানকে বাচাঁনোর জন্য হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে বলা হয়েছে। পরে এ বিষয়টি দেখা হবে।’

ট্যাগ: Banglanewspaper ইন্দুরকানী