banglanewspaper

মো: মোজাম্মেল ভূইয়া, আখাউড়া (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়া আখাউড়ায় মৌসুমী নানা ফলে ভরে উঠেছে আখাউড়ার ফলের বাজার। গরমের মধ্যে রোজায় স্বস্তি ও পুষ্টি পেতে আম, জাম, লিচু, তরমুজ, বাঙ্গিসহ নানা রসালো ফল ঘরে নিচ্ছেন মানুষ।

রোববার আখাউড়ার বাজার ফলের আড়তগুলোতে গিয়ে দেখা যায় বিরাহমীন ব্যস্ততা। দাম নিয়ে অসন্তুষ্টি থাকলেও বাজারের বিভিন্ন প্রান্তে বিশেষ করে আখাউড়ার সড়কবাজারের ফুটপাতে বসা ফলের খুচরা দোকানগুলোতেও ছিল ক্রেতাদের ভিড়।জ্যৈষ্ঠ মাসের মাঝামাঝিতে বাজারে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসেছে আম, জাম, তরমুজ, লিচু, বাঙ্গি, আনারসসহ বিভিন্ন ধরনের মৌসুমী ফল।

আখাউড়া সড়কবাজারের ফল ব্যবসায়  হেলাল মিয়া বলেন, “এই মুহূর্তে বাজারে যেসব আম দেখা যাচ্ছে তার অধিকাংশই আমাদের পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের, এগুলো আকারে একটু ছোট।” দাম নিয়ে তিনি বলেন, দাম আগের তুলনায় কম। এখন খুচরা প্রতি কেজি আম ৫০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তিনি।
 আম রুপালি ৬০ টাকা থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি করা হয়।

এক সপ্তাহ ধরে কমেছে আনারসের দাম। এখন বড় আকারের একজোড়া আনারস পাওয়া যাবে ৬০ টাকায়। বাজারে কোনো কোনো দোকানে জামও দেখা গেছে। যদিও এর দাম তুলনামূলক বেশি বলে জানিয়েছেন অধিকাংশ ক্রেতা।  বাজারগুলোতে এসেছে গ্রীষ্মের সবচেয়ে স্বল্প মেয়াদি ফল লিচু। সরবরাহ বেশি থাকায় দামও সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। 

খচরা ব্যবসায়ী রিপন মিয়া বলেন, একশ লিচু দেড়শ থেকে দুইশ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।এবং খুচরা হিসেবে দুইশ থেকে আড়াইশ টাকায় বিক্রি হচ্ছে লিচুর শোয়া। সড়কবাজারের ফল বিক্রেতা মোহাম্মদ রজব মিয়া  বলেন, “এই মুহূর্তে দেশি ফলে বাজার সয়লাব হলেও । দামেও তেমন কোনো পরিবর্তন আসেনি, দাম দীর্ঘদিন ধরেই একই রকম।” তিনি বলেন, ফলের আমদানি মূল্যের ওপর খুচরা দাম নির্ভর করে। বাজারে এখন প্রতিকেজি মাল্টা ১৪০ টাকা, আপেল ১৬০ লটকন১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।” সড়কবাজারের রফিকুল ইসলাম নামের এক ক্রেতা বলেন, অন্যান্য বাজারের তুলনায় এখানে ফলের দাম তুলনামূলক কম।

ট্যাগ: banglanewspaper আখাউড়া